Latest News

সিপিএমে ডার্বির গুঁতো! ব্যাক পাস খেলতে হচ্ছে আলিমুদ্দিনকে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দলের মুখপত্রে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে কর্মসূচি ডেকেছে সিপিএম (CPM)। কিন্তু সেই কর্মসূচি নিয়ে বিপাকে আলিমুদ্দিন স্ট্রিট। জোড়া খেলার চাপে কর্মসূচি পিছিয়ে দিতে হচ্ছে বহু জায়গায়। এ ব্যাপারে নিয়ম শিথিল করছে রাজ্য কমিটিও।

আগামী ২৮ অগস্ট সিপিএম শাখায় শাখায় পাঠচক্র করার কর্মসূচি নিয়েছে। গত এপ্রিলে কান্নুরে অনুষ্ঠিত পার্টি কংগ্রেসে যে রাজনৈতিক প্রস্তাব গ্রহণ করেছে দল তা দলের একেবারে নিচুতলায় পৌঁছে দেওয়া হবে। সর্বভারতীয় স্তরে কংগ্রেসের সঙ্গে সম্পর্ক, রাজ্য বিশেষে সেই লাইনের কি তারতম্য হবে—ইত্যাদি প্রভৃতি পাখি পড়ানোর মতো করে শেখাবেন দলেরই নেতারা। কিন্তু ওইদিন জোড়া খেলা রয়েছে।

‘সুপার সানডে’-তে জোর লড়াই বাইচুং ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর! ফেডারেশনের নয়া প্রেসিডেন্ট সেদিনই

২৮ তারিখ একদিকে ডুরান্ড কাপের ডার্বি (Derby)। আড়াই বছর পর ইস্টবেঙ্গল-মোহনবাগান নামবে যুবভারতীতে। ইতিমধ্যেই বড় ম্যাচের অনলাইন টিকিট ফুরিয়ে গিয়েছে। অফলাইন টিকিটেরও চাহিদা তুঙ্গে। নতুন মরশুমে প্রথম মহারণ। তার উপর এতদিন পর কলকাতায় নামবে দুই প্রধান। ফলে গ্যালারি উপচে যাবে বলাই বাহুল্য। তাছাড়া ওই সন্ধেতেই দুবাইয়ে এশিয়া কাপের ম্যাচে নামবে ভারত-পাকিস্তান (India Vs Pakistan)।

সিপিএম সূত্রে জানা যাচ্ছে, বহু জায়গাতেই দলীয় সদস্যরা স্থানীয় নেতৃত্বকে জানিয়ে দিচ্ছেন, ওই দিন কোনও ভাবেই পার্টি কর্মসূচি করা যাবে না। সাধারণত এই ধরনের পাঠচক্র বা ক্লাস বিকেলের পরেই হয়। কিন্তু সময় সংঘাত যে এ ভাবে তৈরি হবে তা বোধহয় অনেকেরই ধারণার মধ্যে ছিল না।

রাতারাতি বাজিমাত ইস্টবেঙ্গলের, এক সঙ্গে পাঁচ বিদেশীকে সই লাল হলুদের

এ ব্যাপারে সিপিএমের এক রাজ্য সম্পাদকমণ্ডলী তথা কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য বলেন, “তারিখটা দেখেই কর্মসূচি করা উচিত ছিল! খেলা নিয়ে আগ্রহ তো থাকবেই। তবে ওইদিন যেখানে যেখানে সম্ভব সকালের দিকে এই কর্মসূচি করা যেতে পারে। নইলে আর কি করা যাবে, পরের রবিবার করবে!”

একাধিক জেলার নেতারাও বলছেন, রাজ্য কমিটি বলেছে বলে ওইদিনই কর্মসূচি করতে হবে এই জেদ না দেখানোই ভাল। তাতে পার্টি মেম্বারদের অঙ্গশগ্রহণ সার্বিক না হলে আশু উদ্দেশ্যটাই সফল হবে না। তার চেয়ে অন্যদিন করাই ভাল।

You might also like