Latest News

BREAKING: বাংলায় বাজি পোড়ানোয় নিষেধাজ্ঞা জারি করল হাইকোর্ট

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কোভিড পরিস্থিতিতে রাজ্যে বাজি পোড়ানোয় নিষেধাজ্ঞা জারি করল কলকাতা হাইকোর্টের গ্রিন ট্রাইব্যুনাল। পরিবেশ আদালত স্পষ্ট জানিয়ে দিল, কালীপুজো থেকে ছট পর্যন্ত বাজি পোড়ানো যাবে না। বিক্রিও করা যাবে না বাজি।

এদিন বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় নির্দেশ দিয়েছেন, আদালতের নির্দেশ কার্যকর করার বিষয়টি পুলিশকে দেখতে হবে। দুর্গাপুজোয় মণ্ডপগুলি যেমন নো এন্ট্রি জোন করা হয়েছিল, তেমনই কালীপুজোর ক্ষেত্রেও করা হয়েছে।

এদিন আদালত বলেছে, ৩০০ বর্গ মিটারের ছোট মণ্ডপের পাঁচ মিটার দূরে থাকবে নো এন্ট্রি বোর্ড। সর্বাধিক ১০ জন মণ্ডপের ভিতর থাকতে পারবেন। ৩০০ বর্গ মিটারের চেয়ে বড় মণ্ডপে একসঙ্গে ৪৫ জনের থাকার অনুমতি দিয়েছে আদালত। ঢাকিরা এই দূরত্বের মধ্যে থেকেই ঢাক বাজাতে পারবেন।

আদালত আরও বলেছে, বিসর্জনের সময়ে কম লোক নিয়ে ঘাটে যেতে হবে। কোনও ভাবেই ভিড় করা যাবে না। পুজো প্যান্ডেলে মাস্ক ও স্যানিটাইজারের ব্যবহার বাধ্যতামূলক বলে জানিয়ে দিয়েছে পরিবেশ আদালত।

বাজি পোড়ালে যে দূষণ বারে একথা বৈজ্ঞানিক ভাবেই সত্য। বাতাসে কার্বনডাই অক্সাইডের মাত্রা বল্গাহীন ভাবে বেড়ে যায়। তাই কোভিড পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে এ বছর বাজি পোড়ানোয় নিষেধাজ্ঞা জারির আবেদন হয়েছিল আদালতে। পরিবেশ আদালতের শুনানিতে এদিন এই রায় দিয়েছে আদালত।

এদিন বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় পুলিশের প্রশংসা করেন। বলেন, দুর্গাপুজোয় পুলিশ খুব ভাল কাজ করেছে। প্রসঙ্গত, পুজো মামলার ডিভিশন বেঞ্চের অন্যতম বিচারপতি ছিলেন সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়। আদালতের নির্দেশ ছিল, যা যা বলা হচ্ছে তা পুলিশকে কার্যকর করতে হবে। আদালতের নির্দেশ এক, দুই, তিন করে লিফলেট ছাপিয়ে পুজো কমিটিগুলোর কাছে পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্বও ছিল পুলিশের কাঁধেই।

দুদিন আগেই রাজস্থান সরকার দেওয়ালিতে বাজি নিষিদ্ধ করার কথা ঘোষণা করেছিল। মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট বলেছিলেন এবার বাজি পোড়ালে তা হবে মানুষকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেওয়া।

You might also like