Latest News

BJP-CBI: সব দলের নেতার সম্পত্তির খতিয়ান ও উৎস জানতে সিবিআই তদন্ত চান বিজেপি বিধায়ক

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ‘সব দুর্নীতিগ্রস্ত রাজনীতিবিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হোক, এটা আমি চাই।’ শুক্রবার এসএসসি মামলায় রাজ্যের মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সম্পত্তির হিসাব দাখিল করার নির্দেশ দিতে গিয়ে এই মন্তব্য করেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। হরিণঘাটার বিজেপি বিধায়ক অসীম সরকারও তাই চান। তিনি চান, তৃণমূল, বিজেপি, সিপিএম, কংগ্রেস সহ সব দলের নেতা-মন্ত্রীর সম্পত্তির পরিমান এবং উৎস খতিয়ে দেখতে সিবিআই তদন্তের আদেশ দিক আদালত (BJP-CBI)।

আগামী সোমবার এই ব্যাপারে আইনজীবী মারফৎ জনস্বার্থের মামলা দায়ের করতে চান অসীম। তাঁর কথায়, খুশি হতাম, মামলাটা যদি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের এজলাসে করা যেত। পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সম্পত্তির হিসাব উনি চেয়েছেন। আমি চাই উনি সব নেতাকে সম্পত্তির হিসাব দাখিল করতে বলুন (BJP-CBI)।

উজ্জ্বলার গ্যাসে ২০০ টাকা ভর্তুকি মিলবে, ঘোষণা কেন্দ্রের

তাঁকে প্রশ্ন করা হয়, তাঁর দল কি মামলা করার ব্যাপারে সায় দেবে? তিনি কি দলের অনুমতি চাইবেন? অসীমের জবাব, সব ব্যাপারে দলের পারমিশন নেওয়ার কী আছে। এটা তো একটা ভাল কাজ। আমি সব দলের নেতাদের সম্পত্তি নিয়েই তদন্ত দাবি করছি। বিজেপি তো বাংলায় এখনও ক্ষমতায় আসেনি। তারপরও যদি কেউ অন্যায়ভাবে বিষয় সম্পত্তি করে থাকে তা হলে যা করার দল তা নিশ্চয়ই করবে।

হরিণঘাটার বাসিন্দা অসীম সরকার পেশাদার কবিয়াল। কবিগানের আসরে যোগ দিয়ে দিন কয়েক আগে ইসলামপুরে গিয়েছিলেন। সেখানে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে তাঁর গাড়ি। বেশ কিছুদিন কলকাতার হাসপাতালে চিকিৎসা করিয়ে হরিণঘাটার বাড়িতে ফিরেছেন। তবে এখনও পুরোপরি সুস্থ নন। স্নান, শৌচাগারে যেতে অন্যের সাহায্য নিতে হয়।

তবে বিচারপতির বক্তব্যে রীতিমত উৎফুল্ল তিনি। তাঁর বক্তব্য, এটা আমার বহু দিনের বাসনা যে রাতারাতি নেতা-মন্ত্রী-এমপি-এমএলএ-দের সম্পত্তি কী করে দ্বিগুন, তিনগুন, চারগুন হয়ে যায় সে রহস্যটা জানব। অনেকবার ভেবেছি, এত কিছু নিয়ে সিবিআই তদন্ত হয়। নেতাদের সম্পত্তি বৃদ্ধি নিয়ে তবে হবে না কেন? এসএসসি মামলায় দুর্নীতির বিরুদ্ধে বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের অবস্থান ও পর্যবেক্ষণে অভিভূত বিজেপি বিধায়ক চান আদালত সব নেতাকে নিয়েই সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিক।

তাঁর কথায়, পঞ্চায়েত, পুরসভার সদস্য, এএলএ, এমপি, মন্ত্রী, নেতা, সব দলের সকলের সম্পত্তি নিয়ে তদন্ত করা দরকার। মানুষ জানুক, কে কীভাবে জনগণের টাকা মেরে দিয়েছে।

এসএসসি মামলায় এখনও পর্যন্ত রাজ্যের দু’জন মন্ত্রীর নাম জড়িয়েছে। এছাডা, বেশ কয়েকজন আধিকারিকের বিরুদ্ধেও সিবিআই এফআইআর করেছে। ৩৪ বছরের বাম শাসনের প্রসঙ্গ টেনে সিপিএম-সহ বাম দলগুলির এই ক্ষেত্রে ভূমিকার প্রশংসা করেছেন অসীম। তিনি বলেন, বাম দলগুলিতে নেতা-কর্মীদের সম্পত্তির খতিয়ান পার্টিতে জমা করার ব্যবস্থা আছে শুনেছি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাবা উচিত, ৩৪ বছর যারা সরকার চালিয়েছে, তাদের এমন কোনও অপকর্ম তিনি খুঁজে পাননি যে দুর্নীতির দায়ে কোনও মন্ত্রীকে জেলে যেতে হয়েছে বা সিবিআই ডেকেছে।

You might also like