Latest News

কেন্দ্রের সুশাসনের তালিকায় ‘ফার্স্ট’ গুজরাত, সবার শেষে বাংলা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সুশাসন দিবস উপলক্ষ্যে তালিকা প্রকাশ করলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। সেই তালিকায় ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের নাম রয়েছে পরপর। কোন রাজ্যে কেমন শাসনব্যবস্থা প্রচলিত তার নিরিখেই এই তালিকা তৈরি করা হয়েছে। সেখানেই দেখা গেল শীর্ষে রয়েছে গুজরাত। আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাংলা রয়েছে সবার শেষে।

অমিত শাহ এদিন বিজ্ঞান ভবনে সুশাসনের যে তালিকা প্রকাশ করেছেন তাতে দেখা যাচ্ছে উত্তরপ্রদেশ, বিহার, ঝাড়খণ্ড প্রভৃতি সব রাজ্যই রয়েছে পশ্চিমবঙ্গের উপরে। কেন্দ্রের এই রিপোর্ট তৈরিতে বাংলায় ভোট পরবর্তী হিংসার ঘটনাগুলির প্রভাব পড়ে থাকতে পারে বলে অনেকে মনে করছেন।

এই তালিকায় মহারাষ্ট্রকে ছাপিয়ে গেছে গুজরাত। শিল্প-বাণিজ্য, পরিবেশ, শিক্ষা, জনস্বাস্থ্য, পরিকাঠামো, কৃষি, আর্থিক পরিচালন ব্যবস্থা, সামাজিক ন্যায় ও উন্নয়ন, আইনব্যবস্থা ও জননিরাপত্তা এবং জনমুখী শাসন এই দশটি বিষয়ের উপর ভিত্তি করে মূলত সুশাসন তালিকা প্রকাশ করা হয়। এই তালিকায় বিজেপি সাসিত রাষ্ট্রগুলির উত্থান চোখে পড়ার মতো।

সুশাসন তালিকায় পশ্চিমবঙ্গ আগেও শেষের দিকেই ছিল। তাকে রাখা হয়েছিল অনুন্নত রাজ্যের তালিকায়। এবছর আরও পিছয়ে একেবারে শেষে স্থান হয়েছে বাংলার। যদিও এই তালিকার গুরুত্বকে উড়িয়ে দিয়েছে তৃণমূল। তাদের দাবি এই তালিকা কেন্দ্রের মনগড়া।

সম্প্রতি কেন্দ্র সরকার বহু চর্চিত বহু সমালোচিত কৃষি আইন প্রত্যাহার করে নিয়েছে। এদিন সুশাসন দিবস উপলক্ষ্যে ভাষণ দিতে গিয়ে অমিত শাহ বলেন, বিজেপি সরকার সেই সমস্ত সিদ্ধান্তই নেয় যাতে দেশের মানুষের আদতেই ভাল হবে। শত বিরোধিতা সত্ত্বেও সেই সিদ্ধান্ত কার্যকরী করা হয় দেশের মানুষের স্বার্থেই। কোনও সিদ্ধান্ত হয়তো জনগণের চোখে ভাল দেখায় কিন্তু আদতে তা ক্ষতিকর, সেই সিদ্ধান্ত কখনও নেয় না মোদী সরকার, জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ।

কৃষি আইন প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তের যুক্তি হিসেবেই এমন কথা বললেন শাহ, মনে করছেন পর্যবেক্ষক মহলের একাংশ। সরকারের বক্তব্য, জনগণ যা চেয়েছে এক্ষেত্রে তাই করা হয়েছে। তাতে রাজনৈতিক ক্ষতি হতে পারে জেনেও পিছু হঠেনি মোদী সরকার।

You might also like