Latest News

রাজ্য বিজেপিতে কোটি কোটি টাকার হিসেব নেই, জব্দ করতে কী করল দিল্লি?

দ্য ওয়াল ব্যুরো: নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহের দল এখন দেশের সবচেয়ে স্বচ্ছল পার্টি (BJP)। তাঁদের আর্থিক স্বাস্থ্য সবার থেকে ভাল। কিন্তু সেই বিজেপির-ই বাংলা শাখায় ভাঁড়ে মা ভবানী দশা! কেন? কারণ সূত্রের দাবি, দিল্লি বিজেপি টাকা পাঠানো বন্ধ করে দিয়েছে। জানা গিয়েছে, দীনদয়াল উপাধ্যায় মার্গ যে টাকা পাঠিয়েছিল ভোট ও রাজ্য পার্টির কাজ পরিচালনার জন্য, সেই টাকার হিসেব দিতে পারছে না বঙ্গ বিজেপি (Bengal BJP)।

বিজেপি সূত্রে খবর, কেন্দ্রীয় পার্টি অডিট করতে গিয়ে সমস্যায় পড়েছে। কারণ উনিশের লোকসভা থেকে একুশের বিধানসভা ভোট পর্যন্ত পর্যাপ্ত টাকা পাঠিয়েছিল তারা। কিন্তু তার যথাযথ হিসেব যায়নি রাজ্য থেকে। বারবার চাওয়া সত্ত্বেও তা পাঠায়নি মুরলীধর সেন লেন।

ফলে বাংলা বিজেপিকে ‘জব্দ’ করতে মাসিক অনুদান পাঠানোই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলে খবর। যে কারণে নাকি দেনার দায়ে পড়তে হয়েছে রাজ্য বিজেপিকে।

এও জানা যাচ্ছে, রাজ্য বিজেপি দফতরে পাওনাদাররা প্রায়ই আসছেন। কিন্তু আজ দেব, কাল দেব করে ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে তাঁদের। এমনিতে বিজেপিতে ফাইভ স্টার ঠাটবাট লেগেই রয়েছে। অমিত শাহ বা জেপি নাড্ডা আসা মানেই নিউটাউনের বিলাসবহুল হোটেলে দলীয় বৈঠক, খাওয়া-দাওয়া। সেসবেরও বিল বকেয়া রয়েছে বলে খবর। ক্যাটারিংয়েরও বিল বকেয়া বলে জানা গিয়েছে।

বিজেপি সূত্রে জানা গিয়েছে, অনেক নেতার গাড়ির তেলের খরচ, ড্রাইভারের মাইনেও দিতে পারা যাচ্ছে না অর্থাভাবে। তবে এও জানা যাচ্ছে, তৃণমূল থেকে বিজেপিতে আসা এক নেতা এই অভাবের সময়ে অনেকটা টাকা দিয়ে ম্যানেজ করার চেষ্টা করছেন। ফলে তাঁর গুরুত্বও বাড়ছে সংগঠনে। তবে তা চাহিদার তুলনায় খুবই সামান্য বলে খবর।

হেস্টিংসে (Hesting) যে বহুতলের একাধিক ফ্লোর ভাড়া করে বিজেপি তাদের ভোট অফিস, ওয়ার রুম সাজিয়েছিল, কয়েক মাস আগে সেখানেও কোপ পড়েছিল। বেশ কয়েকটি ফ্লোর ছেড়ে দেয় গেরুয়া শিবির। কারণ, ভোটে হারের পর সেই লোকলস্কর, কাজের বহর আর নেই। কিন্তু কেন্দ্রীয় সংগঠনের তুলনায় মাসিক অনুদান বন্ধ করে দেওয়ায় যারপরনাই বিপাকে বাংলা বিজেপি।

সুদীপের স্যুটকেস খোয়া গেল ট্রেন থেকে, তদন্তে নেমেছে লালবাজার

You might also like