Latest News

বাবুল মন্ত্রী হওয়ার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই হিট উইকেট, অমর্ত্য প্রসঙ্গে দূরত্ব রাখল তৃণমূল

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বাবুল সুপ্রিয় (Babul Supriyo) নরেন্দ্র মোদীর মন্ত্রী থাকাকালীন সকাল-বিকেল টুইট করতেন, ফেসবুকে পোস্ট দিতেন। সেই পর্বে বিতর্ক ছিল তাঁর নিত্য সঙ্গী।

কিন্তু গেরুয়া জার্সি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়ার পর বাবুল (Babul Supriyo) ছিলেন সতর্ক। মেপে কথা বলতেন। সোশ্যাল মিডিয়াতেও তাঁর আঙুল ছিল সংযত। ফুলটস বল পেলেও জাজ দিয়ে ছেড়ে দিতেন। লোকে বলত বাবুল সাবধানী! সংযত! পরিণতও বটে।

কিন্তু শুক্রবার সন্ধেবেলা বাবুল যা বলে বসেছেন তা শুনে অনেকেই বলছেন, বাবুল বোধহয় মন্ত্রী হওয়ার জন্যই ঘাপটি মেরে ছিলেন। যেই মন্ত্রী হয়েছেন, ওমনি পুরনো ফর্মে মুখ খুলেছেন। অমর্ত্য সেন নিয়ে তাঁর মন্তব্য তীব্র আকার নিয়েছে। চারিদিকে সমালোচনার ঝড়ের সঙ্গে তৃণমূলও বাবুলের সঙ্গে দূরত্ব বজায় রেখেছে।

নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ রাজ্য সরকারের বঙ্গবিভূষণ সম্মান গ্রহণ করেননি। শুক্রবার সিপিএমের মুজফফর আহমেদ স্মৃতি পুরস্কার গ্রহণ করেছেন অধ্যাপক সেন। সেই প্রসঙ্গেই বাবুল বলেছেন অমর্ত্য সেন পর্যটক।

একদা মোদীর মন্ত্রী বাবুল (Babul Supriyo) দিদির মন্ত্রিসভায় পর্যটন দফতরের দায়িত্ব পেয়েছেন। সেই তিনি নোবেলজয়ী অমর্ত্যকে পর্যটক বলে কটাক্ষ করেছেন।

অমর্ত্য সেনকে ‘পর্যটক’ বলে কটাক্ষ পর্যটন মন্ত্রী বাবুলের

এ ব্যাপারে তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, অমর্ত্য সেন বাংলার গর্ব। তাঁর সম্পর্কে অসম্মানজনক মন্তব্য তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থন করে না।

আবার সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সুজন চক্রবর্তী বলেন, “বাবুল আসলে গুলিয়ে ফেলছেন। চারপাশে অর্জুন সিং, বিশ্বজিত দাসদের দেখে বুঝতে পারছেন না তিনি তৃণমূল না বিজেপি!”

অমর্ত্য সেন প্রথম থেকেই মোদী সরকারের চক্ষুশূল। নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তাঁকে সরিয়ে দিয়েছিল কেন্দ্র। বিভাজনের রাজনীতি ইত্যাদি নিয়ে অমর্ত্যবাবু প্রথম থেকেই সরব। নোটবন্দি থেকে কোভিড পর্ব-মোদী সরকারের সমালোচনা করেছিলেন তিনি। যে কারণে রাহুল সিনহারা কার্যত হাঁড়িকাঠে চড়িয়েছিলেন তাঁকে।

সব দেখে অনেকে বলছেন, বাবুল মোদীর মন্ত্রী থেকে দিদির মন্ত্রী হয়েছেন বটে, কিন্তু পুরনো জার্সির গন্ধ ছাড়তে পারেননি।

You might also like