Latest News

সাঁকরাইলে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে ১৩টি হাতি! আতঙ্ক চরমে, ঘরেই বন্দি সবাই

দ্য ওয়াল ব্যুরো: একটা নয় দুটো নয় এবার একসঙ্গে ১৩টা দাঁতাল হাতি তাণ্ডব চালাল সাঁকরাইল ব্লকের মুড়াকাটি গ্রামে। আতঙ্কে ঘরের বাইরে পা রাখতে পারছেন না বাসিন্দারা।

জঙ্গলে নিশ্চয়ই খাবারের অভাব, তাই খাবার খুঁজতে হাতির পাল লোকালয়ে ঢুকে পড়েছে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে পড়েন বন দফতরের কর্মীরা। তাঁদের পক্ষ থেকে গ্রামবাসীদের সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেইসঙ্গে হাতিদের উত্যক্ত করা বা হাতির আসা যাওয়ার পথেও বাধা দিতে নিষেধ করা হয়েছে।

বন দফতরের কর্মীরা এখন হাতির পালের গতিবিধির ওপর নজর রাখছেন। তবে যেভাবে হাতির দলটি মুড়াকাটি গ্রামজুড়ে দাপাদাপি শুরু করেছে তাতে আতঙ্ক বেড়েই চলছে।

অন্যদিকে রাতভর হাতির তাণ্ডবে আতঙ্কের প্রহর গুনছেন রাঙামাটি গ্রামের বাসিন্দারাও। ঝাড়গ্রাম জেলা ও পশ্চিম মেদিনীপুর সীমান্ত এলাকার সেই রাঙামাটি গ্রামে হঠাৎ করেই একদল হাতি ঢুকে পড়ে তাণ্ডব চালাচ্ছে। ঘরবাড়ি দোকানঘর ভাঙচুরের পাশাপাশি ক্ষেতের শস্যও তছনছ করে চলেছে তারা। মাথায় হাত বাসিন্দাদের।

এই পরিস্থিতিতে হুলা পার্টি ও গ্রামের বাসিন্দারা মিলে হাতি তাড়ানর চেষ্টা করলেও রাত ২টো নাগাদ ১১টি হাতির ওই দলটি আবারও ফিরে আসে। এবার তাণ্ডব চলে জগেশ হেমরম নামের এক স্থানীয় বাসিন্দার বাড়িতে। অভিযোগ, ৮-১০ বস্তা ধান খেয়ে সাবাড় করে দেয় হাতির দল। একটি মারুতি গাড়িও নাকি ভেঙে দিয়ে যায় হাতিরা।

ভোর পাঁচটা পর্যন্ত চলে সেই তাণ্ডব। আতঙ্কিত গ্রামবাসী বন দফতরে ফোন করলেও দেখা মেলেনি কোনও আধিকারিকের, এমনটাই জানা যায়।

শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী হাতির দলটি এখনও রয়েছে রাঙামাটির জঙ্গলে, সাধারণ মানুষের সুরক্ষায় বন দফতর কী ব্যবস্থা গ্রহণ করে তার দিকেই তাকিয়ে রাঙামাটি গ্রামের বাসিন্দারা।

You might also like