Latest News

ঝাড়গ্রামের মহিলা কনস্টেবল সুইসাইড নোটে এক পুলিশকর্মীকে দায়ী করেছেন, দাবি স্বামীর

রবিবার সকালে দক্ষিণ-পূর্ব রেলের খড়গপুর-টাটানগর শাখার সরডিহা স্টেশনের কাছে রেললাইন থেকে উদ্ধার হয় ওই মহিলা কনস্টেবলের ক্ষতবিক্ষত দেহ। তাঁর নাম সুষমা মাহাত(৩৬)। দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঝাড়গ্রাম পুলিশ মর্গে পাঠায় রেল পুলিশ।

দ্য ওয়াল ব্যুরো, ঝাড়গ্রাম: বেলা গড়াতেই আরও গাঢ় হল মহিলা পুলিশ কনস্টেবলের মৃত্যু রহস্য। ওই কনস্টেবলের স্বামীর চাঞ্চল্যকর অভিযোগ, মানিকপাড়া বিট হাউজ ফাঁড়ির এক পুলিশকর্মী তাঁর স্ত্রীকে অনবরত নানাভাবে উত্যক্ত করত। নানাভাবে তাঁর উপর চাপ সৃষ্টি করত। তাই বাধ্য হয়েই অন্তিম পথ বেছে নিয়েছেন তিনি। সুইসাইড নোটেও ওই ব্যক্তিকেই তাঁর স্ত্রী মৃত্যুর জন্য দায়ী করেছেন বলে তিনি জানান।

রবিবার সকালে দক্ষিণ-পূর্ব রেলের খড়গপুর-টাটানগর শাখার সরডিহা স্টেশনের কাছে রেললাইন থেকে উদ্ধার হয় ওই মহিলা কনস্টেবলের ক্ষতবিক্ষত দেহ। তাঁর নাম সুষমা মাহাত(৩৬)। দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঝাড়গ্রাম পুলিশ মর্গে পাঠায় রেল পুলিশ।

ঝাড়গ্রামের সাঁকরাইল থানার কনস্টেবল ছিলেন সুষমা।  ঝাড়গ্রাম ব্লকের মানিকপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের সরডিহা রেল স্টেশন সংলগ্ন ধাতকাপাড়া গ্রামে ছিল তাঁর  শ্বশুরবাড়ি। সেখানে থেকেই সাঁকরাইল থানায় ডিউটি করতে যেতেন তিনি। তাঁর দুই ছেলে খড়্গপুরে একটি ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে পড়াশোনা করে। খড়্গপুরে বাড়ি করার জন্য জমিও কিনেছিলেন। সাঁকরাইল থানা থেকে ছত্রিশগড়ে এক অভিযুক্তকে ধরতে গিয়েছিলেন। শুক্রবার ছত্রিশগড় থেকে ফেরার পর শনিবার তিনি আর ডিউটিতে যাননি।

তাঁর স্বামী ভবতোষ মাহাত বলেন, ‘‘এতদিন আমি কিছু জানতে পারিনি। শনিবার রাতেই সুষমা আমাকে জানায় মানিকপাড়া বিট হাউজ ফাঁড়ির এক পুলিশকর্মী ওঁকে খুব উত্যক্ত করছিল। নানাভাবে চাপ দিচ্ছিল। অনেক রাত পর্যন্ত আমরা কথা বলি। ভোর পাঁচটা নাগাদ ঘুম ভাঙলে দেখি ও আমার পাশে নেই। আমি খুঁজতে বের হই। পরে বাড়ির কাছে রেললাইনে ওর ক্ষতবিক্ষত দেহ দেখতে পাই। সুইসাইড নোট লিখে ও আমার প্যান্টের পকেটে রেখে গেছিল। আমি পরে তা দেখতে পাই।’’

তবে এখনও কারও বিরুদ্ধে থানায় কোনও অভিযোগ জানাননি ভবতোষবাবু। এদিকে যে পুলিশকর্মীর নাম সুইসাইড নোটে উল্লেখ করা হয়েছে ওই নামে সেখানে কেউ নেই বলে জানিয়েছেন মানিকপাড়া বিট হাউজ ফাঁড়ির ওসি। সব মিলিয়ে এই কনস্টেবলের মৃত্যুতে রহস্য গাঢ় হয়েছে। এদিন সকালেই মানিকপাড়া বিট হাউজ পুলিশ মৃত মহিলা কনস্টেবলের বাড়ি গিয়ে পরিবারের সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদ করে। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে অশান্তি ও মনোমালিন্যের হদিশও মিলেছে বলে পুলিশ দাবি করেছে।

You might also like