Latest News

‘সুপার সানডে’-তে জোর লড়াই বাইচুং ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর! ফেডারেশনের নয়া প্রেসিডেন্ট সেদিনই

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কেউ কাউকে এক ইঞ্জি জমি ছাড়বেন না। জোর লড়াই হবে সর্বভারতীয় ফুটবল সংস্থার (AIFF) (এআইএফএফ) প্রেসিডেন্ট পদের নির্বাচনে (AIFF Election)। ২৮ অগস্ট নির্বাচনের দিন ধার্য হয়েছে। সেদিনই আবার ডুরান্ড কাপে (Durand Cup) এটিকে মোহনবাগান ও ইমামি ইস্টবেঙ্গলের মধ্যে ম্যাচ রয়েছে। সেদিনই আবার এশিয়া কাপে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে ম্যাচ।

ওই সুপার সানডে-তেই ফেডারেশনের নয়া প্রেসিডেন্ট ঠিক হয়ে যাবে। লড়াইয়ে রয়েছেন বাইচুং ভুটিয়া ও কেন্দ্রীয় ক্রীড়ামন্ত্রী ও বর্তমান মন্ত্রী বিজেপি নেতা সর্বানন্দ সোনোয়াল। এই দু’জনের মধ্যেই কেউ একজন হবেন পরবর্তী ফেডারেশন প্রেসিডেন্ট।

বিশ্বচ্যাম্পিয়নকে পিটিয়ে ছুড়ে ফেলা হল সমুদ্রে! নীরজকে হারিয়েছিলেন তিনি

বাইচুংয়ের পাশে রয়েছেন দেশের প্রাক্তন ফুটবলাররা। ফুটবলারদের ৩৬ জনের ভোট রয়েছে। সোনোয়ালের শক্তি আবার বিজেপি পার্টি। দলের সমর্থন থাকলে ফেডারেশনের শীর্ষ কর্তা তিনিই হবেন। যদিও বিজেপি-র সমর্থন রয়েছে কিনা সেটি পরিষ্কার নয়। তাই বাইচুংও চিন্তামুক্ত। তিনি প্রেসিডেন্ট পদে লড়বেন, আগেই বলে দিয়েছেন।

সোনোয়াল লড়বেন কিনা, সেটিও স্পষ্ট নয়। কারণ তিনি বর্তমানে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। সংবিধানে রয়েছে, কোনও রাজনীতিবিদ লড়তে পারবেন না ফেডারেশনের নির্বাচনে। সেই নিয়ম কার্যকর থাকলে বাইচুংয়ের সামনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার কেউ থাকবেন না।

এদিন অবশ্য দুপুরে আইএফএ-র চেয়ারম্যান সুব্রত দত্তের নাম সংস্থার থেকে প্রেসিডেন্ট পদে মনোনয়নে পাঠানো হয়েছে। সুব্রত বাবুর লড়াই খুব কঠিন। তাঁর পাশে ক’জন সদস্য থাকবেন, বলা কঠিন। তিনি দীর্ঘদিন সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন, সেইসময় তিনি প্রেসিডেন্ট হলে টার্মের ভিত্তিতে বলার কিছু থাকত না। কিন্তু নির্বাচনে তিনি পারবেন না, বলাই যেতে পারে।

এবার উত্তর-পূর্ব থেকেই প্রেসিডেন্ট হবে, দিল্লি থেকে ফেডারেশনের এক কর্তা জানালেন দ্য ওয়ালকে। তিনি জানিয়েছেন, রোটেশন প্রথা ধরলে ওই রাজ্য থেকেই প্রেসিডেন্ট হবেন। কারণ অসমের কেদারনাথ মোরের পরে কেউই ওই রাজ্য থেকে সচিব কিংবা প্রেসিডেন্ট হননি।

You might also like