Latest News

Sidhu : আত্মসমর্পণ করলেন সিধু

দ্য ওয়াল ব্যুরো : শুক্রবার সকালেই কংগ্রেস নেতা নভজ্যোৎ সিং সিধু (Sidhu) টুইট করে বলেছিলেন, আত্মসমর্পণ করার জন্য তিনি কয়েকদিন সময় চান। কিন্তু এদিন বিকালে শোনা গেল, তিনি (Sidhu) পাতিয়ালা কোর্টে আত্মসমর্পণ করেছেন। ৩৪ বছর আগে সিধুর (Sidhu) সঙ্গে মারপিটের পর একজন মারা যান। সেই অপরাধে আদালত তাঁকে এক বছর সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে।

সিধুর কৌঁসুলি তথা কংগ্রেস নেতা অভিষেক মনু সিংভি সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এ এম খানউইলকরকে বলেন, তাঁর মক্কেল অসুস্থ। তিনি কিছুদিন পরে আত্মসমর্পণ করবেন। বিচারপতি খানউইলকর বলেন, এব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন প্রধান বিচারপতি এন ভি রামানা।

পাঞ্জাবে বিধানসভা ভোটে কংগ্রেসের পরাজয়ের পরে প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতির পদটি ছেড়ে দেন সিধু। তিনি আত্মসমর্পণের জন্য বাড়তি সময় চাওয়ার পর বিরোধী পক্ষের আইনজীবী প্রতিবাদ করেন। তিনি বলেন, ৩৪ বছর কেটে গিয়েছে মানে এই নয় যে, অপরাধের গুরুত্ব লঘু হয়ে গিয়েছে। এতদিন বাদে বিচারপতি রায় দিয়েছেন। অপরাধী আরও তিন-চার সপ্তাহ সময় চান।

অভিষেক মনু সিংভি বলেন, “আমার মক্কেল আত্মসমর্পণ করবেন। তাঁকে বাড়তি সময় দেওয়া হবে কিনা আপনারা ঠিক করুন।” বিচারপতি খানউইলকর বলেন, “আপনারা প্রধান বিচারপতির কাছে আবেদন জানান। আমরা বিবেচনা করব”।

১৯৮৮ সালের ২৭ ডিসেম্বর গুরনাম সিং নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে সিধুর কথা কাটাকাটি হয়। গুরনাম সিং ছিলেন পাতিয়ালার বাসিন্দা। গাড়ি পার্কিং করা নিয়ে দু’জনের বিবাদ শুরু হয়। অভিযোগ, গুরনাম সিংকে গাড়ি থেকে টেনে হিঁচড়ে বার করেন সিধু। তারপর তাঁকে মারধর করেন। হাসপাতালে গুরনাম সিং মারা যান। জনৈক প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, সিধু গুরনাম সিং-এর মাথায় গুরুতর আঘাত করেছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীর ধারণা, সেই আঘাতই গুরনাম সিং-এর মৃত্যুর কারণ। ২০১৮ সালে সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশ দেয়, ‘ইচ্ছাকৃতভাবে এক ব্যক্তিকে আঘাত করার জন্য’ সিধুকে এক হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। পরে সুপ্রিম কোর্ট নিজের রায় খতিয়ে দেখে। বিচারপতিদের মনে হয়, সিধুকে কারাদণ্ড দেওয়া উচিত।

আরও পড়ুন : SSC Recruitmenmt: ‘আই ওয়াশ’, শিক্ষক নিয়োগের নতুন বিজ্ঞপ্তি নিয়ে মন্তব্য বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের

You might also like