Latest News

মঞ্চে বসে ৭৫-র নায়ক শ্যাম, হুঙ্কার ছাড়লেন টুটু, ‘এবার ওদের ৫ গোল দেব’

দ্য ওয়াল ব্যুরো: এখনও মোহনবাগানের (Mohun Bagan) সেই প্রজন্মের সমর্থকরা চোখ বুজলে দিনটি হয়তো দেখতে পান। ১৯৭৫ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর আইএফএ শিল্ডের ফাইনালে ইস্টবেঙ্গলের কাছে ৫-০ গোলে চূর্ণ হয়েছিল মোহনবাগান।

সেই অভিশপ্ত দিনে যিনি মোহনবাগান বধের অন্যতম নায়ক ছিলেন, সেই শ্যাম থাপাকে (Shyam Thapa) ক্লাব রত্ন হিসেবে বেছে নিল। শ্যামের বাঁশিতে সেদিন ত্রাহি রব উঠে গিয়েছিল সবুজ মেরুন দূর্গের। তিনি করেছিলেন জোড়া গোল।

বিধ্বংসী শিবা, গেমসে বক্সিং রিংয়ে পাক বধ, উড়ে গেলেন সুলেমান

শুক্রবার আলো ঝলমল ক্লাব তাঁবুতে শ্যামের সামনেই এবার হুঙ্কার ছাড়লেন ক্লাব প্রেসিডেন্ট টুটু বসু (Tutu Bose)। তিনি জানিয়েছেন, সেই পাঁচ গোলের ম্যাচ আমরা ভুলিনি, হয়তো কোনওদিন ভুলব না। সেদিন যে আমাদের চূর্ণ করেছিল, তাঁকে আমরা রত্ন দিতে পেরে গর্বিত। তবে এটিও বলে রাখি শ্যাম আমাদের হয়ে অনেক মুকুট পেয়েছে।

পাশাপাশি টুটু বলে রেখেছেন, ‘‘৪৭ বছর আগের সেই ম্যাচের কথা মনে রেখে বলছি, ডুরান্ডের জার্সিতে এবার ইস্টবেঙ্গলকে পাঁচ গোলে হারাব আমরা, মনে রেখে দিন।’’ সারা মাঠ সেইসময় উল্লাস করছে, মুখ নিচু করে বসে শ্যাম।

মোহন বাগান সচিব দেবাশিস দত্ত কম যাননি। তিনিও বললেন, ‘‘ওরা ভয় পেয়েছে ডার্বিতে। তাই বড় ম্যাচ পিছতে অনুরোধ করেছে। শেষ তিনবছর ডার্বি জেতেনি। আমি মনে করি, আমি যদি রাজা হই, যুদ্ধে যাওয়ার সময় প্রতিপক্ষের হাতে অস্ত্র তুলে দেব। বিনা অস্ত্রে যুদ্ধে লাভ নেই। তাই ওদের অনুরোধ মেনে নিয়েছি।’’

মোহনবাগান রত্ন পেলেন শ্যাম থাপা। জীবনকৃতি সম্মান পেলেন বলাই দে। বর্ষসেরা ফুটবলারের সম্মান পেলেন লিস্টন কোলাসো। সেরা ফরোয়ার্ডের পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়েছে কিয়ান নাসিরির হাতে।

এদিন আবার তার মধ্যে রাজ্যের ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস মোহন কর্তাদের অনুরোধ করেছেন যাতে দল লিগ খেলে। তিনি বলেছেন, ‘‘মোহনবাগানকে মানুষ চেনে বাংলার ক্লাব হিসেবেই। লিগ থেকে অনেক ফুটবলার উঠে আসে।’’ তার জবাবে মোহন সচিব দেবাশিস বলেছেন, ‘‘লিগ তো আর রাজ্য সরকারের টুর্নামেন্ট নয়, আমরা আইএফএ-র থেকে অনেক টাকা পাই, তাই না দিলে খেলব কিনা ভাবতে হবে।’’

You might also like