Latest News

Sexual Crime : প্রায় ১১ লাখ যৌন অপরাধীর ঠিকুজি অচিরেই তদন্তকারীদের হাতে

দ‌্য ওয়াল ব্যুরো : দেশের নানা প্রান্তে যৌন লাঞ্ছনার (Sexual Crime)অভিযোগে যে সব ব্যক্তিকে বুধবার পুলিশ গ্রেফতার করেছে তারা কি আগেও একই ধরনের অপরাধ করেছে? অন্য রাজ্যেও কি ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে একই ধরনের অভিযোগ রয়েছে?

আর কদিন পর এই তথ্য (Sexual Crime)দেশের সমস্ত থানার হাতের মুঠোয় চলে আসবে। ন্যাশনাল ডাটা অন সেক্স্যুয়াল অফেনসেস (Sexual Crime)নামে একটি ডাটা ব্যাঙ্ক তৈরি করেছে কেন্দ্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।

এখন খুন, ডাকাত, চুরি, ছিনতাই, দাঙ্গা ইত্যাদির মতো অপরাধে যুক্তদের মধ্যে স্বভাবঅপরাধীদের তথ্য ব্যাঙ্ক রয়েছে। যৌন অপরাধীদের (Sexual Crime)নিয়েও একই ধরনের তথ্য ব্যাঙ্ক গড়ে তোলা হয়েছে সম্প্রতি। ২০২১ পর্যন্ত তথ্য তাতে রয়েছে। জানা গিয়েছে ১০ লাখ ৬৯ হাজার এমন অপরাধীর বিষয়ে সমস্ত তথ্য রয়েছে।

সমস্ত তথ্য বলতে নাম ঠিকানা এবং পারিবারিক পরিচয় তো আছেই, আঙুলের ছাপ, ছবি, অপরাধের বিশেষ বর্ণনা, মামলার পরিণতি ইত্যাদি আছে তথ্য ব্যাঙ্কে।

কীভাবে কাজ করবে এই তথ্যব্যাঙ্ক ? জানা গিয়েছে, অভিযুক্ত ব্যক্তি নির্দিষ্ট মেশিনে আঙুল ঠেকালেই কম্পিউটারের পর্দায় ভেসে উঠবে তার অপরাধ ঠিকুজি। ফলে মুহূর্তের মধ্যে জানা যাবে অতীত অপরাধের খতিয়ান। নাম, বাবার নাম ইত্যাদি তথ্য দিয়েও বের করা যাবে পুরনো তথ্য।

২০১৮- র ফৌজদারি দণ্ডবিধির সংশোধনের সময় এই ধরনের তথ্যব্যাঙ্ক গড়ার কথা বলা হয়েছিল। সেই বছরই কাজ শুরু হয় তথ্য ব্যাঙ্কটি গড়ে তোলার। সংশোধিত আইনে বলা হয়েছে, যৌন অপরাধের মামলার তদন্ত দু’মাসের মধ্যে শেষ করতে হবে। অন্যদিকে, শিশুর উপর যৌন নির্যাতনের ঘটনায় তিন মাসের মধ্যে মামলার নিষ্পত্তি করার বিধান রয়েছে। তদন্তকারীরা মনে করছেন, যৌন অপরাধের ঠিকুজি তদন্তে গতি আনবে।

আরও পড়ুন : টোকাটুকি হয়নি, উচ্চমাধ্যমিক শেষে সংসদ সভাপতির বিবৃতি

You might also like