Latest News

অচিন্ত্যকে নিয়ে উচ্ছ্বসিত শচীনও, লিখলেন, ‘তোমার লড়াই আমাদের কাছে প্রেরণা’

দ্য ওয়াল ব্যুরো: অদ্ভুত এক লড়াই। একটা সময় ছিল যখন সংসারে প্রতিদিন অনটনের ছবি উজ্জ্বল হয়ে থাকত। দেশবাসীর কাছে সেই কারণেই বাংলার ভারোত্তোলক অচিন্ত্য শিউলির (Sachin Achinta) লড়াইয়ের গল্প প্রেরণার বার্তা হয়ে রয়েছে।

বাংলার এই ছেলের নিদারুণ সাফল্যে উচ্ছ্বসিত শচীন তেন্ডুলকারও। তিনি টুইট করেছেন,  ‘‘হাওড়ার দর্জির কাজ করা থেকে শুরু করে আজ বার্মিংহ্যামে জাতীয় পতাকা ওড়ানো, দেশকে গর্বিত করা। সত্যি দারুণ একটা লড়াইয়ের জীবন। এই জীবনের গল্প প্রত্যেককে অনুপ্রাণিত করবে। সোনার জন্য অনেক শুভেচ্ছা এবং যেভাবে এই প্রতিভার আর্মি পাশে রয়েছে সেই জন্য ভারতীয় আর্মিকেও কুর্নিশ।’’

বাবা ছিলেন ভ্যানচালক, দর্জি মায়ের লড়াই হাওড়ার অচিন্ত্যকে পৌঁছে দিয়েছে সাফল্যের শিখরে

অচিন্ত্য রবিবার রাতে স্ন্যাচের প্রথম প্রচেষ্টায় ১৩৭ কেজি ভার তোলেন। দ্বিতীয় প্রচেষ্টায় ১৪০ কেজি ভার তুলে তিনি কমনওয়েলথ গেমস রেকর্ড গড়েন। তৃতীয় প্রচেষ্টায় ১৪৩ কেজি ভার তুলে নিজের গেমস রেকর্ড আরও বাড়িয়ে নেন অচিন্ত্য। স্ন্যাচে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মালয়েশিয়ার এরি হিদায়াত মহম্মদের থেকে ৫ কেজির ব্যবধান তৈরি করেন অচিন্ত্য। হিদায়াত স্ন্যাচে ১৩৮ কেজি ভার তোলেন। ১৩৫ কেজি ভার তুলেছেন কানাডার শাদ ডারসিগনি।

রবিবার মাঝ রাতের পর থেকে হাওড়ার দেউলপুর গ্রামের অচিন্ত্যকে চেনে গোটা দেশ। তবে কমনওয়েলথে সোনা জিতেও খুশি হতে পারেননি ২০ বছরের তরুণ। তিনি বলেছেন, ‘‘এই লড়াই ছিল আমার নিজের সঙ্গে। সোনা জিতব আমি ভাবিনি, আমার লক্ষ্য ছিল আরও বেশি ওজন তোলা, সেই কাজটি করতে পারলে আরও ভাল লাগত।’’

You might also like