Latest News

বাংলা পড়তে পারেন না, ইংরেজিতেও তথৈবচ! শিক্ষকের যোগ্যতা নিয়ে বিক্ষোভ বাঁকুড়ায়

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ইংরেজি দেখলেই পিছিয়ে যান, বাংলা বানান বানানও ভুল বলেন, এমনকি বাংলা পড়তে গিয়ে নাকি গোঁত্তা খান খোদ শিক্ষকই! এমন অভিযোগে সোমবার শোরগোল পড়ে গেল বাঁকুড়ার ওন্দায়। অভিভাবকদের অভিযোগ, এমনভাবে বাচ্চাদের পড়াশুনা লাটে উঠছে, অবিলম্বে সরাতে হবে ওই ‘অযোগ্য’ শিক্ষককে। (Protest on Teacher ability)

সোমবার সকাল থেকেই উত্তেজনা ছড়ায় বাঁকুড়ার (Bankura) ওন্দা থানা এলাকার চড়ুইকুড় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। স্কুলের সামনেই ভিড় করেন অভিভাবকরা। স্কুলের গেটে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ দেখান তাঁরা। তাঁদের দাবি, স্কুলে চলছে অযোগ্য শিক্ষককে দিয়ে পঠন-পাঠন। ওই শিক্ষকের অপসারণেরও দাবি জানান তাঁরা।

জানা গেছে, যে শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিভাবকদের এত রোষ সেই শিক্ষকের নাম রাজীব কুমার দীক্ষিত। ২০২১ সালে চড়ুইকুড় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন তিনি। বাঁকুড়ার সোনামুখীর রাজীবের বিরুদ্ধে একরাশ অভিযোগ অভিভাবকদের।

অভিভাবকদের কথায়, ওই শিক্ষক বাচ্চাদের ইংরেজি পড়াতেই চান না। পড়ালেও তা ভুলভাল পড়ান। এমনকি বাংলা জানেনই না তিনি। বানান বলেন ভুল, বলতেও পারেন না ঠিকঠাক। এর ফলে বাচ্চারাও ভুল শিখছে। এই অভিযোগ নিয়ে আগেও সংশ্লিষ্ট দফতরের কাছে জানিয়েছেন অভিভাবকরা। কিন্তু মেলেনি কোনও রফাসূত্র।

অভিভাবকদের অভিযোগ, রাজীব দীক্ষিত নামে ওই শিক্ষককে অপসারণ করা হয়নি, বহাল তবিয়তে এখনও স্কুলে রয়ে গেছেন তিনি। তাই সোমবার একজোট হয়ে অভিভাবকরা স্কুল ঘেরাও করেন। স্কুলের গেটে তালা লাগিয়ে দেন।

আন্দোলনকারীদের দাবি, এই অযোগ্য শিক্ষককে যতক্ষণ না সরানো হচ্ছে ততক্ষণ এই আন্দোলন চলবে। নিজের স্কুলের শিক্ষক যে পড়াতে পারেন না সে কথা কি জানতেন প্রধান শিক্ষক? জানতেন এবং মানতেনও সেই কথা। তিনি বলেন যে, এই বিষয়ে বারবার ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন তিনি। কিন্তু যাঁর বিরুদ্ধে এই অভিযোগ সেই রাজীব দীক্ষিত কিন্তু নির্বিকার। শুধু জানালেন, তাঁকে ষড়যন্ত্র করে ফাঁসানো হচ্ছে।

মারা গেল আলিপুরদুয়ারের রাজা, দেশের বৃদ্ধতম রয়েল বেঙ্গল টাইগার

You might also like