Latest News

শুক্রবার ফের বাড়ল পেট্রল, ডিজেলের দাম, ছুঁল রেকর্ড

দ্য ওয়াল ব্যুরো : শুক্রবার দেশের চারটি শহরে সর্বকালের রেকর্ড ছুঁল পেট্রল ও ডিজেলের দাম। এই নিয়ে পরপর চারদিন তেলের দাম বাড়ল। দিল্লিতে পেট্রলের দাম বাড়ল লিটারে ২৯ পয়সা। এখন রাজধানীতে এক লিটার পেট্রলের দাম ৮৭ টাকা ৮৫ পয়সা থেকে বেড়ে হল ৮৮ টাকা ১৪ পয়সা। ডিজেলের দাম বেড়েছে লিটারে ৩৫ পয়সা। তার এক লিটারের দাম ৭৭ টাকা ৩ পয়সা থেকে বেড়ে হয়েছে ৭৮ টাকা ৩৮ পয়সা।

ইন্ডিয়ান অয়েল কর্পোরেশন জানিয়েছে, কলকাতায় এখন এক লিটার পেট্রলের দাম ৮৯ টাকা ৪৪ পয়সা। এক লিটার ডিজেলের দাম ৮১ টাকা ৯৬ পয়সা। মুম্বইতে এক লিটার পেট্রলের দাম ৯৪ টাকা ৬৪ পয়সা। এক লিটার ডিজেলের দাম ৮৫ টাকা ৩২ পয়সা। চার মেট্রো শহরের মধ্যে মুম্বইতেই পেট্রল-ডিজেলের দাম এখন সবচেয়ে বেশি। চেন্নাইতে এক লিটার পেট্রলের দাম ৯০ টাকা ৪৪ পয়সা। এক লিটার ডিজেলের দাম ৮৩ টাকা ৫২ পয়সা।

গত ৬ জানুয়ারি থেকে দেশে পেট্রল ও ডিজেলের দাম বাড়ছে। তার আগের একমাস জ্বালানি তেলের মূল্য স্থিতিশীল ছিল। বিশ্ব জুড়ে কোভিডের টিকাকরণ শুরু হওয়ার পরে অপরিশোধিত তেলের দাম বাড়তে থাকে। তার সঙ্গে সাযুজ্য রেখে দেশের বাজারেও পেট্রল, ডিজেলের দাম বাড়ে।

ফেব্রুয়ারির শুরুতে জানা যায়, নেট-জিরো কার্বন কোম্পানি হওয়ার পথে এক ধাপ এগল শিল্পপতি মুকেশ আম্বানির রিল্যায়ান্স। বিশ্বে প্রথম উৎপাদিত ‘কার্বন-নিউট্রাল’ তেলের উৎপাদন, পরিশোধন, বিতরণের জন্য রিল্যায়ান্সের সঙ্গেই চুক্তি করল মার্কিন কোম্পানি।

বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বড় তেল শোধনাগার সংস্থা রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ গোষ্ঠী। গুজরাতের জামনগর এবং কৃষ্ণা-গোদাবরী অববাহিকায় কেজি-ডি৬ — এই দু’টি তেল শোধনাগার রয়েছে মুকেশ অম্বানির সংস্থার। যার মধ্যে জামনগরের তেল শোধনাগারে প্রায় ২০ লক্ষ ব্যারেল তেল তৈরির জন্য চুক্তি করেছে মার্কিন সংস্থা অক্সিডেন্টাল। এই চুক্তির তত্ত্বাবধানে রয়েছে আন্তর্জাতিক সংস্থা ম্যাকুয়েরি। অক্সিডেন্টালের ‘অক্সি লো কার্বন ভেঞ্চারস’ ইউনিট থেকে ভিএলসিসি সি পার্ল জাহাজে চেপে তেল এসে পৌঁছেছে জামনগরের শোধনাগারে। এবার থেকে এই তেলের উৎপাদন, শোধন, বিতরণ, সংরক্ষণ সবই করতে পারবে মুকেশ আম্বানির সংস্থা।

কার্বন-নিউট্রাল তেল কী? সোজা কথায় বলতে গেলে, যে তেলের উৎপাদন ও পরিশোধনের সময় কার্বন, সালফারের মতো বিষাক্ত গ্যাস তৈরি হবে না। এই তেলের ব্যবহারে পরিবেশে গ্রিন হাউস গ্যাসের পরিমাণও কমবে। যার অর্থ হল বায়ুদূষণের মাত্রা কমবে। কাঠ, কয়লা বা মাটির নিচের তেল জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করার ফলে তৈরি হয় কার্বন ডাইঅক্সাইড। কার্বন বায়ুমণ্ডলে থেকে যায় হাজার হাজার বছর। মূলত এই কার্বনের জন্যই গ্রিনহাউস গ্যাসের সৃষ্টি। গ্রিনহাউস গ্যাসের প্রভাবেই বিশ্বজুড়ে বায়ুমণ্ডল দ্রুত উষ্ণ হয়ে উঠছে। বিশ্ব উষ্ণায়নের পিছুপিছু এসেছে আবহাওয়া পরিবর্তন।

You might also like