Latest News

তৃণমূল নেতাদের গাছে বাঁধবে মানুষ, ওএমআর শিট উধাও নিয়ে আগ্রাসী সেলিম

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ২০১৪ সালের প্রাথমিক টেট পরীক্ষার উত্তরপত্র উধাও হওয়া নিয়ে মঙ্গলবার সিবিআই (CBI) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিল হাইকোর্ট (High Court)। অভিযোগ, ১২ লক্ষ ওএমআর শিট নাকি পাওয়া যাচ্ছে না। তা নিয়ে বুধবার সিপিএম রাজ্য সম্পাদক মহম্মদ সেলিম (Md Salim) অভিযোগ করলেন, টাকা নিয়ে চাকরি দেওয়ার জন্য পরীক্ষার্থীদের সাদা খাতা জমা করানো হয়েছিল। প্রমাণ লোপাট করতেই ওই খাতা উধাও হয়ে গিয়েছে।

এখানেই থামেননি সিপিএম রাজ্য সম্পাদক। খানিকটা আগ্রাসী ঢঙেই বলেন, ‘এরপর তৃণমূল নেতাদের গাছে বাঁধবে মানুষ। আমরাও চাই, ছেলেমেয়েরা এগিয়ে এসে বলুন, কাদের তাঁরা টাকা দিয়েছিলেন।’

সেলিমের কথায়, ‘এতদিন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়, আইনজীবী বিকাশ ভট্টাচার্যকে ভিলেন সাজানো হচ্ছিল। আজকে প্রমাণ হয়ে গেছে কী হয়েছে।’

ব্রাত্যর শর্তে না, উল্টে বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের সাফ হুঁশিয়ারি, বেআইনি ভাবে চাকরি পেলে ইস্তফা দিন এক্ষুণি

আট বছর আগে প্রাথমিকের টেট পরীক্ষায় ২০ লক্ষের বেশি ছেলেমেয়ে পরীক্ষা দিয়েছিলেন। মঙ্গলবার আদালতে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ ওই লক্ষ লক্ষ উত্তরপত্রের বিষয়ে কোনও সদুত্তর দিতে পারেনি। তারপর সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। এবং বলে রাত আটটার মধ্যে প্রাথমিকশিক্ষা পর্ষদের প্রাক্তন সভাপতি তথা তৃণমূল বিধায়ক মানিক ভট্টাচার্যকে হাজিরা দিতে হবে নিজাম প্যালেসে। প্রয়োজনে তাঁকে হেফাজতেও নিতে পারবে কেন্দ্রীয় এজেন্সি।

কিন্তু মানিক বুধবার সন্ধে পর্যন্ত দিল্লিতে রয়েছেন। গ্রেফতারির ব্যাপারে শুক্রবার পর্যন্ত সুপ্রিম কোর্ট থেকে রক্ষাকবচ পেয়েছেন তৃণমূল বিধায়ক।

এদিন সেলিম বলেন, ‘একা মানিক নন। এরকম মণি-মানিক্য অনেক ছড়িয়ে রয়েছে।’ এ ব্যাপারে তৃণমূলের সর্বোচ্চ নেতৃত্বের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল তুলেছেন সিপিএমের এই পলিটব্যুরোর সদস্য।

You might also like