Latest News

কোভিডের মৃদু উপসর্গে হোম আইসোলেশনের নিয়ম বদলাল, জেনে নিন কী পরিবর্তন

দ্য ওয়াল ব্যুরো : গত দু’বছর ধরেই কোভিড আক্রান্তদের (Covid Infected) বেশিরভাগের শরীরে মৃদু উপসর্গ (Mild Symptoms) দেখা গিয়েছে অথবা আদৌ কোনও উপসর্গ দেখা যায়নি। এবার তাঁদের জন্য কোভিড নির্দেশিকা (Covid Rule) সংশোধন করল কেন্দ্রীয় সরকার। বুধবার স্বাস্থ্যমন্ত্রক বলেছে, যাঁরা অ্যাসিম্পটোম্যাটিক বা যাঁদের শরীরে মৃদু উপসর্গ রয়েছে, তাঁরা সাধারণত বাড়িতেই আইসোলেশনে থাকেন। তবে তাঁদের ওপরে নজর রাখা হয়। প্রয়োজনে চিকিৎসক তাঁদের পরামর্শ দেন। কাদের বাড়িতে আইসোলেশনে রাখা হবে, তাঁদের ক্ষেত্রে এবং তাঁদের পরিবারের ক্ষেত্রে কী সতর্কতা অবলম্বন করা হবে এবং ক’দিন তাঁরা আইসোলেশনে থাকবেন, সেসবই নতুন নির্দেশিকায় নির্দিষ্ট করে বলা হয়েছে।

সরকার স্পষ্ট বলেছে, কেউ কোভিড পজিটিভ হওয়ার পরে অন্তত সাতদিন আইসোলেশনে থাকতেই হবে। তাঁদের যদি পরপর তিনদিন জ্বর না আসে, তাহলেই সাতদিনে আইসোলেশন থেকে বেরোতে পারবেন। তাঁদের মাস্ক পরে চলাফেরা করতে হবে। এর আগে হোম আইসোলেশনের মেয়াদ ছিল ১০ দিন।

নির্দেশিকায় উপসর্গহীন রোগীর সংজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, কোভিড টেস্টে যাঁরা পজিটিভ হয়েছেন, অথচ যাঁদের শরীরে কোনও উপসর্গ নেই এবং সাধারণ অবস্থায় অক্সিজেন স্যাচুরেশন লেভেল ৯৩ শতাংশ, তাঁদের অ্যাসিম্পটোম্যাটিক রোগী বলা হবে।

বাড়িতে আইসোলেশনে থাকার সময় যদি রোগীর অবস্থার অবনতি হয়, সঙ্গে সঙ্গে ডাক্তারকে জানাতে হবে। তাঁর সঙ্গে কথা বলে রোগীর অন্যান্য কো-মরবিডিটিরও চিকিৎসা চলবে। জেলা বা রাজ্য প্রশাসন থেকে রোগীর জন্য টেলিকনসালটেশনের ব্যবস্থা করবে। অর্থাৎ রোগী ফোনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পারবেন।

হোম আইসোলেশনে থাকার সময় রোগীদের জ্বর ও সর্দিকাশি দেখা দিতে পারে। তাঁরা দিনে তিনবার গরম জলে গার্গল করতে পারেন অথবা স্টিম নিতে পারেন। দিনে ৬৫০ মিনিগ্রামের চারটি প্যারাসিটামল খেয়েও যদি জ্বর না কমে তাহলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় করোনা রোগীদের চিকিৎসার নানারকম পদ্ধতির কথা বলা হচ্ছে। এই ধরনের ‘চিকিৎসায়’ রোগীর ক্ষতি হতে পারে। ভুল তথ্যে বিশ্বাস করে অনেকে আতংকিত হয়ে পড়তে পারেন। তখন হয়তো তিনি এমন সব টেস্ট করাতে চাইবেন যার দরকার ছিল না।

রোগীদের সতর্ক করে বলা হয়েছে, মৃদু উপসর্গ থাকলে স্টেরয়েড গ্রহণ করার দরকার নেই। কেউ যেন চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া স্টেরয়েড না গ্রহণ করেন। কারও অক্সিজেন স্যাচুরেশন কমলে বা শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা প্রয়োজন হতে পারে। শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে অবিলম্বে সংশ্লিষ্ট মেডিক্যাল অফিসারের সঙ্গে কথা বলতে হবে।

You might also like