Latest News

পার্থর বিস্ফোরক দাবি, ‘মন্ত্রী ছিলাম ঠিকই, নিয়োগে আমার নিয়ন্ত্রণ ছিল না!’

দ্য ওয়াল ব্যুরো: শুক্রবার আলিপুর আদালতে বিস্ফোরক দাবি করলেন প্রাক্তন শিক্ষা ও শিল্পমন্ত্রী (Minister) পার্থ চট্টোপাধ্যায় (Partha Chatterjee)। পার্থ ও মধ্যশিক্ষা পরিষদের প্রাক্তন চেয়ারম্যান কল্যাণময় বন্দ্যোপাধ্যায়কে হেফাজতে চেয়ে এদিন আদালতে আবেদন জানিয়েছে সিবিআই (CBI)। তার সমান্তরালেই পার্থর আইনজীবী এদিন আদালতে একটি আবেদন জানিয়েছেন।

আদালতে জানানো আবেদনে পার্থ বলেছেন, আমি যখন শিক্ষামন্ত্রী ছিলাম তখন আমার ভূমিকা ঠিক কী ছিল তা খতিয়ে দেখা হোক। আমি শিক্ষা মন্ত্রী পদে ছিলাম ঠিকই, কিন্তু নিয়োগের (recruitment) ব্যাপারে আমার নিয়ন্ত্রণ (Control) ছিল না। পার্থর এও বক্তব্য, এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট তাঁকে গ্রেফতার করলেও এখনও পর্যন্ত কোনও চার্জশিট পেশ করতে পারেনি। সুতরাং তাঁকে জামিন দেওয়া হোক।

পার্থর এই দাবিকেই বিস্ফোরক বলে মনে করা হচ্ছে। একদিকে সিবিআই যখন তাঁকে নিয়োগ কেলেঙ্কারির নায়ক তথা মাস্টারমাইন্ড বলছে, তখন প্রাক্তন শিক্ষা মন্ত্রী অন্য ইঙ্গিত করছেন বলেই মনে করা হচ্ছে।

স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন উঠেছে যে পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের নিয়ন্ত্রণ যদি নিয়োগে না থাকে, তা হলে কার নিয়ন্ত্রণ ছিল? কারা নিয়ন্ত্রণ করত শিক্ষা দফতর তথা নিয়োগ প্রক্রিয়া। প্রসঙ্গত, নিয়োগ কেলেঙ্কারি নিয়ে এর আগে হাইকোর্টে বাগ কমিটি যে রিপোর্ট পেশ করেছিল তাতে কল্যাণময় বন্দ্যোপাধ্যায়, অশোক সিনহা, শান্তিপ্রসাদ সিনহাদের যড়যন্ত্রের কথা উল্লেখ করা হয়েছিল। আবার শান্তিপ্রসাদকে স্কুল সার্ভিসের উপদেষ্টা পদে নিয়োগ করেছিলেন পার্থবাবুই।

গ্রুপ সি মামলায় পরীক্ষা ও ইন্টারভিউ হয়েছিল ২০১৭ সালে। কিন্তু তার নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয় ২০১৯ সালে। সিবিআইয়ের অভিযোগ অন্তত চারশ জন প্রার্থীকে বেআইনি ভাবে নিয়োগ করা হয়েছে।

এদিন আদালতে পার্থর দাবি নিয়ে সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তী বলেছেন, “আমরা গোড়া থেকেই বলছিলাম, শুধু শিক্ষামন্ত্রী নন এই নিয়োগ কেলেঙ্কারিতে সরকারের মাথারাও জড়িত ছিলেন। কেন্দ্রীয় তদন্ত এজেন্সি কী করবে জানি না। তবে আমরা চাইব কলকাতা হাইকোর্ট তথা আদালত পার্থর এই বক্তব্যকে যেন গুরুত্ব দেয়। এবং সেই অনুযায়ী তদন্তের নির্দেশ দেয়। ”

পার্থই নিয়োগ কেলেঙ্কারির মাস্টারমাইন্ড, কল্যাণ-অশোক-শান্তি সেই ষড়যন্ত্রে লিপ্ত: আদালতে সিবিআই

You might also like