Latest News

পদ্মশ্রী পেলেন কমলালেবু বিক্রেতা, ছোটদের স্কুল গড়েছেন তিনি, তাঁর পড়াশোনার দৌড় জানেন

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ছোটখাটো ঝাঁকা মাথায় করে ব্যস্ত রাস্তা দিয়ে হেঁটে যান তিনি। ঝাঁকা থেকে উঁকি মারে লেবু। কমলালেবু (Orange) বেচেই পেট চলে মেঙ্গালুরুর বিক্রেতা হরেকালা হাজাব্বার। কিন্তু সোমবার রাষ্ট্রপতির সামনে সেই তিনিই দাঁড়িয়েছিলেন মাথা উঁচু করে। হাতে তুলে নিয়েছেন দেশের অন্যতম সেরা সম্মান পদ্মশ্রী।

কর্ণাটকের গ্রামে কমলালেবু বিক্রেতা কেন পেলেন পদ্মশ্রী। কী তাঁর কাহিনি? শুনলে কিন্তু শ্রদ্ধায় নত হয়ে আসে মাথা।

হরেকালা হাজাব্বা নিজে কখনও স্কুলে যাননি। পেটে নেই এক ফোঁটা বিদ্যা। কিন্তু তিনি তাঁর গ্রামে সকলের কাছে অক্ষর সাধু নামে পরিচিত। সকলেই তাঁকে ভালবাসেন, শ্রদ্ধা করেন। গ্রামে যে শিক্ষার আলো ফুটিয়েছেন তিনিই।

নিজের সবকিছু দিয়ে গ্রামে একটি স্কুল স্থাপন হরেকালা হাজাব্বা। মাত্র ২৮ জন পড়ুয়া নিয়ে ২০০০ সালে শুরু হওয়া সেই স্কুল এখন ডালপালা মেলেছে। এখন সেখানে পড়তে যায় ১৭৫ জন, ক্লাস ১০ পর্যন্ত হয় পড়াশোনা। কর্ণাটকের কমলালেবু বিক্রেতার এই মহৎ উদ্যোগ প্রশংসিত হয়েছে দেশ জুড়ে, শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দেওয়ার তাগিদ তাঁকে এনে দিয়েছে পদ্মশ্রী। সোমবার রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ তাঁর হাতে পদ্মশ্রী তুলে দিয়েছেন।

মেঙ্গালুরুর বাস স্টপে বসে কমলালেবু বিক্রি করতে করতে কেন হঠাৎ স্কুল তৈরির কথা ভাবলেন হরেকালা হাজাব্বা? তাঁর পিছনে লুকিয়ে আছে আরও এক গল্প। কোনও এক বিদেশি পর্যটক একবার নাকি তাঁর কাছ থেকে লেবু কিনতে চেয়েছিলেন। কিন্তু লেবুর দাম কিছুতেই তিনি ওই পর্যটককে বোঝাতে পারেননি। কন্নড় ছাড়া আর কোনও ভাষাতেই তিনি কথা বলতে পারেন না। ইংরেজি তো দূরের কথা, জানেন না হিন্দিও। তা নিরুপায় হয়ে পড়েছিলেন ওই বিদেশি ক্রেতার সামনে।

কিন্তু এর পর থেকে জেদ চেপে যায় হাজাব্বার মাথায়। তিনি পণ করেন, গ্রামের সকলকে শিক্ষিত করে তুলবেন। ন্যূনতম শিক্ষা না থাকলে যে কত সমস্যায় পড়তে হয় তা ঠিকই বুঝেছিলেন হাজাব্বা। তাই কমলামেবু বেচতে বেচতেই স্কুল গড়ার উদ্যোগ নিতে শুরু করেন। এলাকার বিধায়কের সহায়তায় তাঁর মহৎ উদ্যোগ বাস্তবায়িত হয়।

৬৬ বছর বয়সি হাজাব্বা জানিয়েছেন, যে পুরস্কার তিনি পেয়েছেন, তার টাকা তিনি কাজে লাগাবেন আরও স্কুল কলেজ তৈরির জন্য। তাঁদের গ্রামেই শিক্ষার কাঠামো আরও দৃঢ় করতে চান তিনি। লেগে পড়েছেন সেই চেষ্টায়। কর্ণাটকের অখ্যাত গ্রামের অখ্যাত এই কমলামেবু বিক্রেতার উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাচ্ছেন সকলেই।

পড়ুন দ্য ওয়ালের সাহিত্য পত্রিকা সুখপাঠ 

You might also like