Latest News

রাতে একই ঘরে শুয়েছিলেন দুই বান্ধবী, তারপর……

দ্য ওয়াল ব্যুরো : রাতে একসঙ্গে থাকবে ঠিক করেছিলেন দুজন। প্রিয় বান্ধবী হওয়ায় বাড়ি থেকেও কোনও আপত্তি ছিল না। কিন্তু কয়েক ঘণ্টা পরেই যেন এক লহমায় থেমে গেল সব। দরজা ভেঙে উদ্ধার হলো দুই বান্ধবীর মৃতদেহ।

ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের বোলপুরের নায়েক পাড়ায়। পাশাপাশি বাড়িতে থাকতেন অনুতমা মণ্ডল ও পায়েল ঘোষ। দুজনেই মধ্যে ভীষণ ভাব। মাঝেমধ্যেই একজন আরেক জনের বাড়িতে রাতে থাকতেন। রবিবার রাতেও অনুতমার বাড়িতে পায়েল ঘুমাতে যায়। পরিবার সূত্রে খবর, রাত সাড়ে ১২টা নাগাদ দরজা বন্ধ করে এক ঘরে ঘুমিয়েও পড়েন তাঁরা।

আরও পড়ুন ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট, মোবাইল কানেকশনে লাগবে না আধার, সংশোধনী এনে সিলমোহর কেন্দ্রের

ঘণ্টা খানেক পরেই তাঁদের ঘর থেকে গোঙানির আওয়াজ আসে। শেষ পর্যন্ত দরজা ভেঙে দেখা যায় মাটিতে পড়ে রয়েছেন অনুপমা ও পায়েল। দুজনেরই মুখ দিয়ে সাদা ফ্যানা বেরাচ্ছে। সঙ্গে সঙ্গে রাতেই তাঁদের প্রথমে বোলপুর মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। সেখানেই তাঁদের মৃত্যু হয়। চিকিৎসকেরা জানান, বিষ খেয়েই মৃত্যু হয়েছে দুজনের।

তাঁরা কেন আত্মহত্যা করলেন তাই নিয়ে ধন্ধে পড়েছে পরিবার। অনুতমা মণ্ডল (২১) শান্তিনিকেতন ডি এড কলেজের ছাত্রী। পায়েল ঘোষ (২০) আমোদপুর কচুইঘাটা ডি এড কলেজে পড়াশোনা করতেন। তাঁদের দুজনেরই বাবা কলকাতা পুলিশে কর্মরত।

পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে , অনুতমা মণ্ডল কলেজ থেকে শিক্ষামূলক ভ্রমণের জন্য ঘুরতে যাওয়ার বায়না করেছিলেন৷ তাঁর সঙ্গেই যেতে চেয়েছিলেন পায়েল ঘোষ। কিন্তু পরিবার রাজি না হওয়ায় দুজনেই খুব ভেঙে পড়েছিলেন৷ তার ফলেই এই আত্মহত্যার ঘটনা বলে মনে করছেন পরিবারের সদস্যরা৷

তবে অন্য আরেকটি সূত্রে জানা গিয়েছে, পায়েল ঘোষের সঙ্গে একটি ছেলের সম্পর্ক ছিল। পায়েলের পরিবার এই সম্পর্ক মেনে নেয়নি। পায়েল অনুতমার বাড়িতে রবিবার ঘুমাতে আসেন। সেখানে তিনি প্রথম বিষ খান, তারপরে অনুতমা। কিন্তু অনুতমা কেন আত্মহত্যা করলেন সেটা পরিষ্কার নয়।

পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে বোলপুর থানার পুলিশ৷ গোটা এলাকা জুড়ে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

The Wall-এর ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন 

You might also like