Latest News

বিজেপি-র রথযাত্রার অনুমতি নিয়ে ‘টালবাহানা’, রাজ্যকে অবস্থান জানাতে বলল হাইকোর্ট

দ্য ওয়াল ব্যুরো: শুক্রবারে কোচবিহার থেকে প্রথম রথযাত্রা শুরু বিজেপি-র। কিন্তু বুধবারও প্রয়োজনীয় অনুমতি হাতে পেল না গেরুয়াবাহিনী। রথযাত্রার অনুমতির বিষয়টি আপাতত হাইকোর্টে বিচারাধীন। কিন্তু কর্মসূচির ৪৮ ঘণ্টা আগেও জটিলতা থেকে যাওয়ায়, রাজ্যসরকারের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার অভিযোগ তুলতে শুরু করে দিল বিজেপি।

আগেই রাজ্যের ডিজি-র কাছে অনুমতি চেয়ে আবেদন জানিয়েছিল ভারতীয় জনতা পার্টি। কিন্তু বেশ কয়েক দিন চলে যাওয়ার পরেও তা না মেলায় সোজা আদালতে চলে যায় গেরুয়া শিবির। বুধবার ছিল  সেই মামলার শুনানি। সেখানেই বিচারপতি তপোব্রত চক্রবর্তী অনুমতি দেওয়া নিয়ে রাজ্যকে তুলোধনাও করেন। রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেল (এজি) কিশোর দত্তর সঙ্গে বিচারপতি চক্রবর্তীর উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ও হয় বলে জানা গিয়েছে।

বিচারপতি শেষ পর্যন্ত বলেন, কোচবিহারের পুলিশ সুপার জেলা বিজেপি-র নেতাদের সঙ্গে বসে সব তথ্য নিয়ে বিষয়টি মিটিয়ে নিক। এজি বলেন, এটা শুধু কোচবিহারের পুলিশ সুপারের ব্যাপার নয়। রথযাত্রা শুরু হবে কোচবিহার থেকে। কিন্তু ঘুরবে বিভিন্ন লোকসভা কেন্দ্রে। কোন নেতারা আসবেন, তাঁরা কী ধরনের নিরাপত্তা পান, রাজ্য পুলিশের ডিজি-র কাছে সেই সব তথ্য জমা দিতে হবে।

বিজেপি নেতা রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “আমরা যখন আবেদন জানিয়েছিলাম, তখনই এই কথাগুলি রাজ্যের বলা উচিত ছিল। এখন আটচল্লিশ ঘণ্টা আগে এ সব নিয়ে কথা বলার মানে কী? আসলে বিজেপি-কে ভয় পেয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার।” তরুণ এই বিজেপি নেতা হুঁশিয়ারির সুরেই বলেন, “অনুমতি দিক আর না দিক, রথযাত্রা হবেই।” অন্যদিকে বিচারপতি চক্রবর্তী বলেন, বৃহস্পতিবারের মধ্যে রাজ্য অবস্থান পরিষ্কার করুক।

শুক্রবার কোচবিহারের রাস মেলার মাঠ থেকে রথযাত্রা শুরু বিজেপি-র। থাকবেন সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। বুধবারই উত্তরবাংলার এই জেলাতে পৌঁছে গিয়েছেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়-সহ বিজেপি নেতারা। গেরুয়া নেতাদের অভিযোগ, রথযাত্রার প্রচারেও বাধা দিচ্ছে তৃণমূল। একদিকে আদালতের লড়াই, অন্যদিকে এলাকায় চাপান উতোর, সব মিলিয়ে রথযাত্রা নিয়ে রাজনৈতিক উত্তেজনা তুঙ্গে।

You might also like