Latest News

হাসপাতালের পথে কোনা এক্সপ্রেস ওয়েতে চাকা খুলে গেল অ্যাম্বুল্যান্সের

পুলিশের সহযোগিতায় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হল রোগীকে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: পুলকার দুর্ঘটনার রেশ কাটার আগে এবার অ্যাম্বুল্যান্সে দুর্ঘটনা। গুরুতর অসুস্থকে নিয়ে যাওয়ার সময় হাওড়ায় কোনা এক্সপ্রেস ওয়েতে সামনের ডান দিকের চাকা খুলে গেল একটি অ্যাম্বুল্যান্সের। সেটি ধাক্কা মারে ডিভাইডারে। গতি কম থাকায় বড় দুর্ঘটনা ঘটেনি, অল্পের জন্য রক্ষা পান রোগী ও তাঁর আত্মীয়রা। তবে প্রশ্ন উঠছে অ্যাম্বুল্যান্সগুলির ‘ফিটনেস’ নিয়ে।

দুর্ঘটনার পরে কোনা এক্সপ্রেসওয়ের ট্রাফিক অফিসারদের সহায়তায় সঙ্গে সঙ্গে ওই রোগীকে পুলিশের অ্যাম্বুল্যান্সে চাপিয়ে কলকাতার পিয়ারলেস হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

রোগীকে নিয়ে যাওয়া হয় পুলিশের অ্যাম্বুল্যান্সে

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, পূর্ব মেদিনীপুরের ঘাটালের বাসিন্দা বছর সত্তরের দুলারানি সামন্তকে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল কলকাতার পিয়ারলেস হাসপাতালে। দুপুর একটা নাগাদ কোনা এক্সপ্রেসওয়ে দিয়ে যাওয়ার সময় অ্যাম্বুল্যান্সের সামনের ডানদিকের চাকা খুলে যায়। রাস্তায় যানজট থাকার জন্য গাড়িটির গতি কম ছিল, সেটি দাঁড়িয়ে যায় ডিভাইডার ধাক্কা মেরে। ঘটনায় হতচকিত হয়ে যান অ্যাম্বুল্যান্সে থাকা দুলারানি সামন্তের দুই ছেলে। গাড়ির চালক অবশ্য দাবি করেছেন চাকা খুলে যায়নি, বিয়ারিং ও বুশ ভেঙে গাড়ি হেলে যায়। তবে গতি বেশি থাকলে বড় বিপদ হতে পারত।

ঘাটাল এলাকায় খারাপ রাস্তার জন্য প্রায়ই গাড়ি খারাপ হয়। প্রশাসন এ ব্যাপারে উদাসীন। পোলবার রেশ কাটতে না কাটতেই এই দুর্ঘটনা। তাই অনেকেই বলছেন পুলকার কেন, অ্যাম্বুল্যান্স-সহ সমস্ত গাড়ির স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা দরকার। না হলে ঝুঁকি নিয়ে প্রাণ হাতে করেই যাতায়াত করতে হবে প্রতিটি যাত্রীকে। তবে পুলকারের পাশাপাশি আগে অ্যাম্বুল্যান্সের দিকে নজর দেওয়া দরকার বলে তাঁরা মনে করেন।

অ্যাম্বুল্যান্সের চালক বলেছেন, এবার থেকে গাড়ি রক্ষণাবেক্ষণের দিকে তাঁরা বিশেষ ভাবে নজর দেবেন।

You might also like