Latest News

এক মহিলার তিন স্বামী, লিভ-ইন পার্টনারকে ধর্ষণের অভিযোগ থেকে রেহাই আদালতের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: এক মহিলা ধর্ষণের অভিযোগ এনেছিলেন তাঁর লিভ-ইন পার্টনারের বিরুদ্ধে। তিন বছর ধরে সেই মামলা চলার পর আমদাবাদের আদালত ধর্ষণের অভিযোগ থেকে রেহাই দিল সেই ব্যক্তিকে। আদালত স্পষ্ট জানিয়ে দিল, এখানে ধর্ষণের অভিযোগ খাটেই না।
কেন?
যে মহিলা তাঁর লিভ-ইন পার্টনারের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনেছিলেন, তাঁর তিনজন স্বামী। আদালতে জেরার মুখে নিজেই ওই মহিলা জানিয়েছেন, তিনজনের কারও সঙ্গেই তাঁর ডিভোর্স হয়নি। তার মধ্যেই এই ব্যক্তির সঙ্গে ২০১৬ থেকে সম্পর্ক শুরু হয় তাঁর।

৩০ বছর বয়সি এই মহিলা ২০১৭ থেকে এই ব্যক্তির সঙ্গে থাকতে শুরু করেন। যাঁর সঙ্গে তিনি থাকতেন তিনি বিবাহিত। তাঁর স্ত্রী ও কন্যা রয়েছে। এটা জেনেই একসঙ্গে থাকা শুরু করেছিলেন মহিলা। আদালতে তিনি জেরার মুখে জানিয়েছেন, তিন স্বামীর সঙ্গেই তাঁর যোগাযোগ রয়েছে। এবং এও জানান, লিভ-ইন পার্টনার বিবাহিত জেনেই তিনি থাকা শুরু করেছিলেন।

২০১৮ সালে নারোল থানায় এই মহিলা অভিযোগ দায়ের করেছিলেন, তাঁর লিভ-ইন পার্টনার তাঁকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে গিয়েছেন। এখন বিয়ে করতে অস্বীকার করছেন।

আদালত সমস্ত কিছু বিবেচনা করে বলেছে, দু’জন প্রাপ্তবয়স্ক স্বেচ্ছায় শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছিলেন। এটাকে কখনওই ধর্ষণ বলা যায় না। আদালত এও বলেছে, ওই মহিলা জেনেশুনেই এই ব্যক্তির সঙ্গে সম্পর্কে এগিয়েছিলেন যে তিনি বিবাহিত। তারপর যখন পুরুষটির পরিবারে জানাজানি হয়, তখন এই মহিলা ধর্ষণের অভিযোগ করেন। সম্পূর্ণ স্বেচ্ছায় হওয়া শারীরিক সম্পর্ককে কখনওই জোর করা বলা যায় না। তিন বছর ধরে মামলা চলার পর শেষপর্যন্ত ধর্ষণের অভিযোগ থেকে রেহাই মিলল ওই ব্যক্তির।

You might also like