Latest News

করোনার বিরুদ্ধে লড়াই প্রধানমন্ত্রীর দফতরে আটকে থাকলে আমরা হারব: রাহুল গান্ধী

কয়েক দিন আগেই রিজার্ভ ব্যাঙ্কের প্রাক্তন গভর্নর রঘুরাম রাজন ও নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে কথা বলেন রাহুল গান্ধী। এই অর্থনীতিবিদদের পরামর্শ কাজে লাগানোর অনুরোধও তিনি করেছেন মোদী সরকারের কাছে।

দ্য ওয়াল ব্যুরো: করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করছে ভারত। সরকারের তরফে পরিকল্পনা হচ্ছে। তা রূপায়ণের চেষ্টা চলছে। সামনে থেকে মোকাবিলা করছেন স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত কর্মীরা। কিন্তু এই লড়াই শুধুমাত্র প্রধানমন্ত্রীর দফতরে সীমাবদ্ধ থাকলে তাতে জয় হবে না বলেই মন্তব্য করলেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। তিনি বলেন, গোটা দেশের সব স্তরের প্রশাসনকে সমান গুরুত্ত্ব দেওয়া উচিত কেন্দ্রের। তবেই এর সমাধান হবে।

শুক্রবার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন রাহুল গান্ধী। তিনি বলেন, “যদি আমরা এই লড়াই প্রধানমন্ত্রীর দফতরেই আটকে রাখি তো আমরা হারব। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উচিত সবাইকে ক্ষমতা দেওয়া। তিনি যেভাবে কাজ করছেন, সেটা হয়তো তাঁর ধরন। কিন্তু বুঝতে হবে এটা অভূতপূর্ব পরিস্থিতি। আমাদের শুধু একজন শক্তিশালী প্রধানমন্ত্রী নয়, অনেক শক্তিশালী নেতা চাই। আমাদের শক্তিশালী মুখ্যমন্ত্রী, শক্তিশালী জেলাশাসক চাই। পঞ্চায়েত স্তর, জেলা স্তরের প্রশাসনের সাহায্যেই আমরা এই সংক্রমণকে থামাতে পারি। জাতীয় স্তরে লড়াই করে করোনাকে হারানো যাবে না।”

উদাহরণ হিসেবে ভারতকে রেড, গ্রিন ও অরেঞ্জ জোনে ভাগ করার কথা বলেন রাহুল গান্ধী। তাঁর মতে এটা করা উচিত ছিল বিভিন্ন জেলার জেলাশাসকদের মাধ্যমে। কারণ তাঁরাই তাঁদের এলাকা সবথেকে ভাল বোঝেন। সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে কর্তার মতো নয়, বরং সহকারীর মতো কথা বলার পরামর্শ তিনি মোদীকে দিয়েছেন।

রাহুল গান্ধী জানান, লকডাউন কী ভাবে খুলতে হবে সে সম্পর্কে একটা স্বচ্ছ পরিকল্পনা থাকা উচিত সরকারের। তিনি বলেন, “আমাদের বুঝতে হবে, লকডাউন খোলার জন্য কী কী বিষয়ের দিকে আমরা লক্ষ্য রাখব। সরকারের উচিত এই বিষয়গুলির কথা সবাইকে জানানো। লকডাউনের ফলে যাঁরা সমস্যায় পড়েছেন, তাঁদের সাহায্য না করে এভাবেই লকডাউন চালিয়ে যাওয়া যাবে না। এর একটা মানসিক দিকও রয়েছে। মানুষ এই মুহূর্তে ভয় পেয়ে আছেন। তাই সরকারের উচিত মানুষের মনের এই ভয়কে দূর করতে সাহস যোগানো।”

আরও পড়ুন ভারতের টার্গেটে হাজারের বেশি মার্কিন কোম্পানি, যারা ব্যবসার জন্য চিন ছাড়তে চায়

এই পরিস্থিতিতে অবশ্য সরকারের বিরোধিতা না করে তার পাশে থাকার জন্য সব দলকে অনুরোধ করেছেন কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি। সেইসঙ্গে গরিব ও অভিবাসী শ্রমিকদের হাতে টাকা দেওয়ারও অনুরোধ করেন তিনি। রাহুল বলেন, “আমাদের সাপ্লাই চেন ঠিক করতে হবে। এখনও অনেক গরিব মানুষ আছেন যাঁরা হাতে টাকা পাননি। তাঁদের টাকা দিতে হবে। অভিবাসী শ্রমিকদের কাজের, থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। তাহলেই তাঁরা এভাবে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ফেরার চেষ্টা করবেন না। বিভিন্ন রাজ্য সরকারকে সঙ্গে নিয়েই কেন্দ্রকে এই কাজ করতে হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।”

কয়েক দিন আগেই রিজার্ভ ব্যাঙ্কের প্রাক্তন গভর্নর রঘুরাম রাজন ও নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে কথা বলেন রাহুল গান্ধী। এই অর্থনীতিবিদদের পরামর্শ কাজে লাগানোর অনুরোধও তিনি করেছেন মোদী সরকারের কাছে।

You might also like