Latest News

যোগী- রাজ্যে কোয়ারেন্টাইন সেন্টারের হাল শোচনীয়, মোদী সরকারকেও কটাক্ষ প্রিয়ঙ্কা গান্ধীর

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভারতে দিন দিন বেড়েই চলেছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। উত্তরপ্রদেশেও বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। আর তাই নিয়ে যোগী আদিত্যনাথ সরকারকে কটাক্ষ করলেন কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক উত্তরপ্রদেশের দায়িত্বে থাকা প্রিয়ঙ্কা গান্ধী বঢড়া। তিনি বলেন, রাজ্যে যখন আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে তখন রাজ্যের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারের হাল খুবই শোচনীয়। এতে পরিস্থিতি আরও খারাপ হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও তাঁর মন্ত্রিসভার অন্য মন্ত্রীদেরও কটাক্ষ করেন তিনি।

যোগী সরকারকে লেখা একটি চিঠিতে প্রিয়ঙ্কা বলেন এই অতিমারীর বিরুদ্ধে শুধুমাত্র মিথ্যে খবর দিয়ে লড়াই করা যায় না। শুক্রবার উত্তরপ্রদেশে আড়াই হাজারের বেশি আক্রান্তের খবর এসেছে। বেশিরভাগ বড় শহরগুলির অবস্থা খারাপ বলে অভিযোগ প্রিয়ঙ্কার। কিন্তু বর্তমানে গ্রামীণ এলাকাতেও সংক্রমণ ছড়িয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

চিঠিতে প্রিয়ঙ্কা বলেন, “উত্তরপ্রদেশের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারগুলির অবস্থা খুবই শোচনীয়। কোথাও কোথাও অবস্থা এতটাই খারাপ যে মানুষ করোনাভাইরাসের থেকে কোয়ারেন্টাইন সেন্টারের ব্যবস্থাকে বেশি ভয় পাচ্ছেন। এই ভয়েই তাঁরা নমুনা পরীক্ষার জন্য বাড়ির বাইরে বের হচ্ছেন না। এটাই সরকারের বড় ব্যর্থতা।”

প্রিয়ঙ্কা আরও অভিযোগ করে বলেন, “সরকারের নীতি হল নো টেস্ট = নো করোনাভাইরাস। টেস্ট না হলেই আক্রান্তের খোঁজ পাওয়া যাবে না। সেই পদ্ধতিই নিয়েছে যোগী সরকার। কিন্তু এর ফলে রাজ্যে সংক্রমণ আরও বাড়ছে। যতদিন না স্বচ্ছতার সঙ্গে নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা বাড়ানো হবে, ততদিন করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সাফল্য আসবে না। পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হবে।”

এই প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও তাঁর মন্ত্রিসভাকেও কটাক্ষ করেন প্রিয়ঙ্কা। তিনি বলেন, “বারাণসীর সাংসদ হলে প্রধানমন্ত্রী। লখনউয়ের সাংসদ কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী। এছাড়া মোদী মন্ত্রিসভার আরও অনেক মন্ত্রী উত্তরপ্রদেশ থেকে সাংসদ। তাহলে কেন বারাণসী, লখনউ, আগ্রাতে হাসপাতাল তৈরি করা হল না। কেন নিজের নিজের কেন্দ্রের খেয়াল রাখছেন না তাঁরা।”

শুক্রবার যোগী রাজ্যে নতুন করে ২৬৬৭ জন আক্রান্ত হয়েছেন, যা একদিনে সর্বাধিক। মৃত্যু হয়েছে সর্বাধিক ৫০ জনের। এর ফলে আক্রান্তের সংখ্যায় প্রথম পাঁচে চলে এসেছে এই রাজ্য। এই অবস্থায় ফের নতুন করে যোগী সরকারকে কটাক্ষ করলেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়ঙ্কা গান্ধী।

You might also like