Latest News

টানা ১৪ দিন বাড়ল পেট্রোল, ডিজেলের দাম, চিন্তা বাড়ছে মধ্যবিত্তের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: টানা ১৪ দিন ধরে বাড়ল পেট্রোল, ডিজেলের দাম। শনিবারও এই বৃদ্ধি অব্যাহত। এভাবে ক্রমাগত পেট্রোল, ডিজেলের বৃদ্ধিতে চিন্তা বাড়ছে মধ্যবিত্তের। এই দাম আগামী দিনে কোথায় গিয়ে পৌঁছবে সেটাই ভাবছেন সবাই।

রাজধানী দিল্লিতে শনিবার প্রতি লিটার পেট্রোলের দাম বেড়েছে ৫১ পয়সা। এদিন দিল্লিতে পেট্রোলের দাম হয়েছে লিটার প্রতি ৭৮ টাকা ৮৮ পয়সা। অন্যদিকে প্রতি লিটার ডিজেলের দাম বেড়েছে ৬১ পয়সা। এই দাম বেড়ে লিটার প্রতি ডিজেলের দাম হয়েছে ৭৭ টাকা ৬৭ পয়সা। গত ১৪ দিনে দিল্লিতে পেট্রোলের দাম মোট বেড়েছে ৮ টাকা ২৮ পয়সা। অন্যদিকে দু’সপ্তাহে ডিজেলের দাম মোট বেড়েছে ৭ টাকা ৬২ পয়সা।

করোনা সংক্রমণের কারণে ৮২ দিন ধরে বন্ধ ছিল জ্বালানি তেলের মূল্য নির্ধারণ। মার্চ মাসের মাঝামাঝি থেকে তা বন্ধ ছিল। ফের একবার প্রতিদিন এই মূল্য নির্ধারণ শুরু করেছে তেলের কোম্পানিগুলি। আর তারপর থেকেই দাম বাড়ছে।

এর আগে ২০১৮ সালের ১৬ অক্টোবর দিল্লিতে ডিজেলের দাম সবথেকে বেড়েছিল। সেদিন ডিজেলের দাম ছিল প্রতি লিটার ৭৫ টাকা ৬৯ পয়সা। এর আগে ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর পেট্রোলের দাম সবথেকে বেড়েছিল। সেদিন পেট্রোলের দাম ছিল ৮৪ টাকা প্রতি লিটার।

দিল্লিতে অবশ্য জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির পিছনে সরকারের হাত রয়েছে। মার্চ মাসে রাজধানীতে প্রতি লিটার পেট্রোল ও ডিজেলে ৩ টাকা করে আবগারি শুল্ক বাড়ায় কেজরিওয়াল সরকার। তারপর করোনা সংক্রমণ ও তার জেরে লকডাউনের পর রাজ্যের রাজস্বকে ফেরানোর জন্য মে মাসে পেট্রোলে প্রতি লিটারে ১০ টাকা ও ডিজেলে প্রতি লিটারে ১৩ টাকা করে আবগারি শুল্ক বাড়ায় দিল্লি সরকার। এই শুল্কের ফলে মে মাসের পর থেকে অতিরিক্ত ২ লক্ষ কোটি টাকার রাজস্ব বাবদ আয় হয়েছে কেজরিওয়াল সরকারের।

করোনা সংক্রমণ ও লকডাউনের জেরে প্রায় দু’মাস রাস্তাঘাটে গাড়ির যাতায়াত ছিল অনেক কম। ফলে জ্বালানি তেলের দামে খুব একটা প্রভাব পড়েনি। সেইসঙ্গে জ্বালানি তেল থেকে রাজ্যগুলির আয়ও কমে গিয়েছিল। তার সঙ্গে আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দামও কমে যায়। তাই লকডাউন কিছুটা শিথিল হতেই শুল্ক বাড়াতে শুরু করেছে রাজ্য সরকারগুলি। সেইসঙ্গে দাম বাড়াচ্ছে তেল কোম্পানিও। আর তার ফলেই প্রতিদিন পেট্রোল, ডিজেলের দাম বাড়ছে। সমস্যায় পড়ছেন সাধারণ মানুষ।

You might also like