Latest News

স্বদেশী নয় এমন এক হাজার পণ্য আর পাওয়া যাবে না আধা সেনার ক্যান্টিনে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ২০ লক্ষ কোটি টাকার আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করতে গিয়ে জাতির উদ্দেশে ভাষণে লোকালের জন্য ভোকাল হতে বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সোমবার, ১ জুন থেকে আধা সেনার ক্যান্টিনে বিক্রি হওয়া দ্রব্যের তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হল স্বদেশী নয় এমন এক হাজার পণ্য।

‘মেড ইন ইন্ডিয়া’ ছাড়া অন্য কিচ্ছু মিলবে না আধা সেনার ক্যান্টিনে। যে ধরনের পণ্য স্বদেশী নয় বলে বাতিল করা হয়েছে তার জায়গায় দেশে উৎপাদিত পণ্য জায়গা পাবে। নিউট্রেলা, টিক ট্যাক, কিন্ডার জয়, হরলিকস ওটস, ইউরেকা ফোবস, টমি হিলফিগারের শার্ট, অ্যাডিডাসের বডি স্প্রের মতো পণ্য এতদিন পাওয়া যেত প্যারা মিলিটারি ক্যান্টিনে। এবার থেকে আর তা মিলবে না। তার জায়গায় বিক্রি হবে দেশীয় পণ্য।

শেকার্স, ফেরেরো, রেড বুল, ভিক্টোরিনক্স, সাফিলোর মতো সাতটি সংস্থার আমদানি করা পণ্যকেও বাতিলের তালিকায় ফেলা হয়েছে।

এই ক্যান্টিন পরিচালনা করে কেন্দ্রীয় পুলিশ কল্যাণ ভাণ্ডার। তারা ঠিক করেছে, যে যে পণ্য ক্যান্টিন থেকে বিক্রি করা হবে তার তিনটি ভাগ থাকবে। এক, একেবারে খাঁটি ভারতীয় পণ্য, দুই, যেগুলির কাঁচা মাল বাইরে থেকে এলেও ভারতে তৈরি হয় এবং তিন, আমদানি করা দ্রব্য।

কেন্দ্রীয় পুলিশ কল্যাণ ভাণ্ডার এই ক্যাটেগরি প্রস্তুত করতে গিয়ে বিভিন্ন সংস্থার কাছে তথ্য চেয়েছিল। যারা দেয়নি সেইসব সংস্থাকেও বাতিলের খাতায় ফেলে দেওয়া হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর আত্মনির্ভর ভারত গড়ার ডাকের পরেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল কেন্দ্রীয় পুলিশ কল্যাণ ভাণ্ডারের তরফে। বলা হয়েছিল, জুন মাসের প্রথম দিন থেকেই  স্বদেশী পণ্য বিক্রির বিষয়টি কার্যকর করা হবে। মূলত, অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও মুদিখানার জিনিসপত্রই বেশি বিক্রি হয় সেনা ক্যান্টিন থেকে। সেনাবাহিনীর প্রায় ৭০ শতাংশ জওয়ান, কর্মী ক্যান্টিন থেকে জিনিস কেনেন। এক আধিকারিকের বক্তব্য, এই সিদ্ধান্ত ৩০-৪০ শতাংশের মধ্যে প্রভাব ফেলবে।

বছরে প্রায় ২৮০০ কোটি টাকার পণ্য বিক্রি হয় সেনা ক্যান্টিন থেকে। সিআরপিএফ, বিএসএফ, সিআইএসএফ, ইন্দো-টিবেটান বর্ডার পুলিশ, এসএসবি, এনএসজি এবং অসম রাইফেলসের কর্মীরা এই ক্যান্টিন থেকে জিনিস কেনার সুবিধা পান।

You might also like