Latest News

করোনায় নার্সের মৃত্যু তেলেঙ্গানায়, অবসরের বাকি ছিল চারদিন

দ্য ওয়াল ব্যুরো: করোনা আক্রান্ত হয়ে তেলেঙ্গানার এক সরকারি হাসপাতালের হেড নার্সের মৃত্যু হয়েছে। জানা গিয়েছে আর চারদিন পরেই ছিল তাঁর অবসরের দিন।

ঘটনাটি ঘটেছে হায়দরাবাদের গান্ধী হাসপাতালে। কয়েক দিন আগে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে ভর্তি করা হয়েছিল। ওই হেড নার্স হায়দরাবাদের গভর্নমেন্ট জেনারেল অ্যান্ড চেস্ট হসপিটালে কাজ করতেন।

গান্ধী হাসপাতালের ডক্টর প্রভাকর রেড্ডি সংবাদসংস্থা এএনআইকে জানিয়েছেন, “হায়দরাবাদের গভর্নমেন্ট জেনারেল অ্যান্ড চেস্ট হসপিটালের এক হেড নার্স করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পরে তাঁকে গান্ধী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওই নার্সের ডায়াবেটিসের সমস্যা ছিল। দু’দিন আগে তাঁর শরীর আরও খারাপ হওয়ায় তাঁকে ভেন্টিলেশনে দিতে হয়। তারপর থেকে সেখানেই ছিলেন তিনি। অনেক চেষ্টার পরেও তাঁকে বাঁচানো যায়নি। শুক্রবার সকালে তাঁর মৃত্যু হয়েছে।”

এই ঘটনার পরে তেলেঙ্গানার রাজ্যপাল ডক্টর তামিলিসাই সৌন্দরাজন ওই নার্সের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন। এই প্রথম হায়দরাবাদে করোনা আক্রান্ত হয়ে কোনও নার্সের মৃত্যুর হল।

জানা গিয়েছে, ওই নার্স মেডিক্যাল লিভ-এ ছিলেন। কিন্তু সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় নার্সের সংখ্যার সমস্যা হওয়ায় কাজে যোগ দেন তিনি। কাজ করতে করতেই তাঁর জ্বর আসে। তখনই নমুনা পরীক্ষা করে তাঁর রিপোর্ট পজিটিভ আসে। হাসপাতাল সূত্রে খবর, ওই নার্স কোভিড ওয়ার্ডে কর্মরত ছিলেন। সেখান থেকেই তাঁর মধ্যে সংক্রমণ ছড়িয়েছে বলেই আশঙ্কা করা হচ্ছে।

কয়েক দিন আগেই গান্ধী হাসপাতালের সুপারিন্টেন্ডেন্টের অফিসের দুই কর্মী করোনা আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। তাঁদের আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছে বলে খবর। তাঁদের সংস্পর্শে আসা অন্য কর্মীদেরও পাঠানো হয়েছে কোয়ারেন্টাইনে।

তেলেঙ্গানায় শুক্রবার নতুন করে আরও ৯৮৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন নভেল করোনাভাইরাসে। এর ফলে তেলেঙ্গানায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২,৩৪৯। রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতরের তরফে জানানো হয়েছে, এই মুহূর্তে ৭৪৩৬ জন অ্যাকটিভ রোগী রয়েছেন তেলেঙ্গানায়।

জানা গিয়েছে, শুক্রবার আরও ৭৮ জন রোগী সুস্থ হয়েছেন দক্ষিণের এই রাজ্যে। এখনও পর্যন্ত ৪৭৬৬ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন তেলেঙ্গানায়। শুক্রবার নতুন করে সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। এখনও পর্যন্ত এই রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট ২৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

You might also like