Latest News

মেহুল চোকসির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি ইন্টারপোলের, উনিশের যুদ্ধের আগে মরিয়া মোদী

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ব্যাঙ্ক প্রতারণার অভিযোগ মাথায় নিয়ে ফেরার লিকার ব্যারন বিজয় মালিয়াকে প্রত্যর্পণের জন্য ব্রিটেনের সঙ্গে কূটনৈতিক দৌত্যে সফল হয়েছে নয়াদিল্লি। কদিন আগে ব্রিটেনের আদালত মালিয়াকে প্রত্যর্পণের নির্দেশ দিয়েছে টেরেসা মে প্রশাসনকে। উনিশের ভোটের আগে এ বার সেলিব্রিটি হীরে ব্যবসায়ী নীরব মোদী এবং আইপিএল কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত ললিত মোদীকে গ্রেফতার করে দেশে ফেরানোর জন্য মরিয়া প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। একই ভাবে ১৩ হাজার কোটি টাকা ব্যাঙ্ক জালিয়াতি কাণ্ডে গুজরাতি ব্যবসায়ী মেহুল চোকসিকেও গ্রেফতারে অতি সক্রিয় হয়েছে নয়াদিল্লি। সূত্রের খবর, সিবিআইয়ের অনুরোধে মেহুল চোকসিকে খুঁজে বের করতে ওয়ারেন্ট জারি করেছে ইন্টারপোল।

বিপুল অঙ্কের ব্যাঙ্ক জালিয়াতি করে মেহুল চোকসি এবং তাঁর ভাইপো নীরব মোদী দু’জনেই দেশ ছেড়ে পলাতক। মোদীর জন্য চাপের হল, এই দুই ব্যবসায়ীই একদা তাঁর ও বিজেপি নেতাদের অনেকেরই ঘনিষ্ঠ ছিলেন। কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি-র মেয়ে-জামাই ছিলেন মেহুল চোকসির আইনি পরামর্শদাতা। ফলে নীরব-চোকসি পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় কেন্দ্রের সরকারের উপর চাপ তো রয়েছেই। তা ছাড়া ক্ষমতায় আসার পর ‘না খাউঙ্গা না খানে দুঙ্গা’ বলে যে স্লোগান তুলে দুর্নীতির বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা করেছিলেন মোদী তার বেলুনও এ ঘটনায় অনেকটাই চুপসে গিয়েছে।

আরও পড়ুন ২০১৯-এও মোদীর ওপরেই নির্ভর করতে বাধ্য হবে বিজেপি, বলছে বিদেশী মিডিয়া

বিজেপি ও সাউথ ব্লক সূত্রের মতে, উনিশের ভোটের আগে মোদী দেশকে দেখাতে চান দুর্নীতির বিরুদ্ধে তিনি সত্যিই যম হয়ে ওঠার ক্ষমতা রাখেন। তাই বিজয় মালিয়াকে প্রত্যর্পণের জন্য যে ভাবে সাফল্য পেয়েছে নয়াদিল্লি, একই ভাবে চোকসি, নীরব মোদীর ক্ষেত্রে তা করে দেখাতে চান প্রধানমন্ত্রী।

সাউথ ব্লকের এক কূটনীতিকের কথায়, এ ব্যাপারে মোদী আগেও সক্রিয় ছিলেন। একটা সময় সরকারের মধ্যে এই ভাবনাও ছিল যে উনিশের ভোটের আগে যদি দাউদ ইব্রাহিমকে কোনও ভাবে গ্রেফতার করে দেশে ফেরানো যায়। সে কারণে সৌদি আরবের সঙ্গে কূটনৈতিক দৌত্যে জোরও দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। সেই চেষ্টা এখনও অব্যাহত রয়েছে।

শুধু তাই নয়, জাতীয় স্তরে মোদী বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতাদের বিরুদ্ধেও দুর্নীতি মামলার তদন্তে এখন সক্রিয় মোদী সরকার। সনিয়া-রাহুলের বিরুদ্ধে ন্যাশনাল হেরাল্ড মামলা, প্রাক্তন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরম, তাঁর ছেলে কার্তি চিদম্বরমের বিরুদ্ধে টেলিকম দুর্নীতি মামলা, তৃণমূল নেতাদের একাংশের বিরুদ্ধে চিটফান্ড কেলেঙ্কারি ইত্যাদি সবেতেই মোদী গতি এনে দেখাতে চান, তাঁর বিরুদ্ধে দুর্নীতিপরায়ণরা এককাট্টা হয়েছেন। এবং কেন্দ্রে মোদী বিরোধী যে জোট তৈরির চেষ্টা হচ্ছে, তাঁদের আসল দেশের মানুষকে নিয়ে নয়। নিজের নিজের পিঠ বাঁচানোর জন্যই জোট করতে চাইছেন তাঁরা।

তবে সিবিআই সূত্রের মতে, মেহুল চোকসিকে প্রত্যর্পণ করা সহজ নয়। শেষ পাওয়া তথ্য অনুযায়ী চোকসিকে দেখা গিয়েছিল অ্যান্টিগুয়ায়। সেখানে নাগরিকত্ব নেওয়ার জন্য গত ১৫ জানুয়ারি শপথ নিয়েছিলেন। তার পর পরই চোকসির বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছিল সিবিআই। অ্যান্টিগুয়া প্রত্যর্পণে রাজি হবে কিনা সেটা বড় প্রশ্ন। এর আগে নীরব মোদীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে কেন্দ্রীয় এই তদন্ত এজেন্সি। সিবিআইয়ের অনুরোধে তাঁর বিরুদ্ধেও গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে রেখেছে ইন্টারপোল। ব্যাঙ্ক প্রতারণা মামলায় নীরব মোদীই প্রধান অভিযুক্ত।

এখন দেখার বিষয় একটাই, মালিয়া-মামলার মতোই মোদী-চোকসিকে প্রত্যর্পণের জন্য সফল হন কিনা প্রধানমন্ত্রী মোদী।

আরও পড়ুন

https://www.four.suk.1wp.in/news-national-devendra-fadnavis-gets-top-court-notice-for-not-declaring-criminal-cases/

The Wall-এর ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন

You might also like