Latest News

লাদাখে চিনের মোকাবিলা, সেনার জন্য আমেরিকার কাছে শীতের পোশাক কিনেছে ভারত

দ্য ওয়াল ব্যুরোঃ চিনা বাহিনীকে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন চিনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। ভারতও পাহাড়ের উচ্চতায় শীতের সময় যে কোনও পরিস্থিতির জন্য তৈরি হচ্ছে। আর সেই জন্যই জরুরি ভিত্তিতে আমেরিকার কাছ থেকে সেনার জন্য শীতের পোশাক কিনেছে ভারত। এই পদক্ষেপ থেকেই পরিষ্কার শীতের সময়েও লাদাখ থেকে সেনা সরাতে চাইছে না নয়াদিল্লি।

সেনা সূত্রে খবর, ভারত ও আমেরিকা দু’দেশের বাহিনীর মধ্যে একটি চুক্তি রয়েছে যার সাহায্যে একে অন্যের থেকে অস্ত্র, জ্বালানি, যুদ্ধবিমান, ট্যাঙ্ক প্রভৃতির অংশ এবং অন্যান্য সরঞ্জাম তারা নিতে পারে। ২০১৬ সালে ভারত ও আমেরিকার সেনার মধ্যে এই ‘দ্য লজিস্টিকস এক্সচেঞ্জ মেমোরান্ডাম এগ্রিমেন্ট’ হয়েছিল। এই চুক্তির আওতায় থেকেই এই পদক্ষেপ করা হয়েছে বলে খবর।

কিছু দিন আগেই জানা গিয়েছিল, শীতকালেও লাদাখ সীমান্ত থেকে সেনা সরাতে চাইছে না ভারত। বরং কী ভাবে সেই সময় সেনা মোতায়েন করে রাখা যায় তা নিয়ে গত মে-জুন মাসেই বৈঠকে বসেছিলেন সেনাপ্রধান এম এম নারাভানে। সেনার কম্যান্ডারদের সঙ্গে আলোচনা করে এই বিষয়ে একটি ব্লু-প্রিন্টও তৈরি করা হয়েছে। সেইমতো সেনা মোতায়েন হচ্ছে।

এছাড়া সম্প্রতি লাদাখে গিয়েছে সি ১৭ গ্লোবমাস্টার ক্যারিয়ার এয়ারক্রাফট। ভারতীয় বায়ুসেনার এই বিমানে করে জওয়ান, রসদ থেকে শুরু করে অস্ত্র, ট্যাঙ্ক সবকিছু পরিবহণ করা সম্ভব। তাই এই বিমানের লাদাখে যাওয়ার অর্থ সেনার জন্য পর্যাপ্ত রসদও পৌঁছে দেওয়ার কাজ হচ্ছে।

শীতকালে লাদাখের তাপমাত্রা মাইনাসে চলে যায়। তাই সেই সময় সেনা সরিয়ে নেওয়ার এক অলিখিত নিয়ম রয়েছে। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে লাদাখ সীমান্তে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর চিনা সেনা যেভাবে আগ্রাসী মনোভাব দেখাচ্ছে তাতে কোনও রকমের সুযোগ দিতে চাইছে না ভারত। তারাও নিজেদের বাহিনীকে মোতায়েন রাখতে চাইছে। আর এই ঠান্ডায় সেনা মোতায়েন রাখতে গরম পোশাকের প্রয়োজন। আমেরিকার সেনার থেকে সেই পোশাকই নিয়েছে ভারত।

গত চার দশকে ভারত ও চিনের মধ্যে এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়নি। কারণ দু’দেশই তাদের অত্যাধুনিক অস্ত্র নিয়ে এসেছে। ১৫ হাজার ফুট উচ্চতায় মাইনাস ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় একে অন্যের চোখে চোখ রেখে দাঁড়িয়ে থাকা যে মোটেই সহজ হবে না তা যানে দু’দেশই। তাই আগে থেকেই প্রস্তুতি নিচ্ছে তারা।

এতদিন পর্যন্ত জওয়ানদের জন্য শীতের পোশাক ইউরোপ ও চিনের থেকেই নিত ভারত। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে চিনের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক উত্তপ্ত। অন্যদিকে আমেরিকার সঙ্গে সম্পর্ক ভাল হওয়ার ফলে আমেরিকার থেকেই এই গরম পোশাক কিনছে ভারত।

গত ১৫ জুন গালওয়ান উপত্যকার সংঘর্ষের পর থেকে ভারত ও চিনের মধ্যে সেনার উচ্চপর্যায় ও কূটনৈতিক স্তরে প্রচুর আলোচনা হয়েছে। এমনকি দু’দেশের বিদেশমন্ত্রী ও প্রতিরক্ষামন্ত্রীরা বৈঠকে বসেছেন। কিন্তু এত আলোচনার পরেও কোনও সমধান সূত্র বের হয়নি। সেনা সরিয়ে নেওয়ার কথা বললেও আরও আগ্রাসী মনোভাব দেখাচ্ছে চিন। তাই ভারতও কোনও ঝুঁকি নিতে চাইছে না। সেই কারণেই সেনা তৈরি রাখছে তারা।

You might also like