Latest News

মুম্বইয়ের হাসপাতালগুলিতে করোনা ওয়ার্ডে ঠাসাঠাসি করে রোগীরা, সামাজিক দূরত্ব শিকেয়

এখনও অবধি মহারাষ্ট্রের ৭০ শতাংশ আক্রান্ত শুধুমাত্র মুম্বই থেকেই হয়েছে। গোটা দেশের ২১ শতাংশ আক্রান্ত এই শহরেই। আশঙ্কা করা হচ্ছে মে মাসের শেষে শুধুমার মুম্বইয়ে আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ হাজার ছাড়িয়ে যাবে।

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মহারাষ্ট্রে করোনা সংক্রমণ ভয়াবহ আকার নিয়েছে। সবথেকে খারাপ অবস্থা বাণিজ্যনগরী মুম্বইয়ে। এই শহরের সব হাসপাতালগুলিতে করোনা রোগীদের ভর্তি করার জন্য যে বেডের ব্যবস্থা করা হয়েছিল, প্রায় সব ভর্তি হয়ে গিয়েছে। বাধ্য হয়ে বেশি বেডের ব্যবস্থা করতে হচ্ছে। আর তার জেরেই করোনা ওয়ার্ডের রোগীদের মধ্যে সামাজিক দূরত্ব কমে গিয়েছে। প্রায় ঠাসাঠাসি করে থাকতে হচ্ছে তাঁদের।

মুম্বইয়ে করোনা মোকাবিলায় ৩৫০০ বেডের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। সেইসব বেড ভর্তি হয়ে গিয়েছে। ফলে বাধ্য হয়ে করোনা ওয়ার্ডে রোগীদের বেডের মধ্যে দূরত্ব কমিয়ে সেখানে আরও বেড ঢোকানো হচ্ছে। হাসপাতালের এক কর্তা জানিয়েছেন, ওয়ার্ডের সবাই তো করোনা আক্রান্ত। তাই তাঁদের মধ্যে আর দূরত্ব বেশি রেখে কী লাভ।

জানা গিয়েছে, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে নতুন করে ১৫০০ বেডের ব্যবস্থা করা হয়েছে মুম্বইয়ের বিভিন্ন হাসপাতালে। যেমন নায়ার হাসপাতালে ৩৩৬ বেড থেকে সংখ্যা বাড়িয়ে ৮০০ করা হয়েছে। কেইএম হাসপাতালে বেডের সংখ্যা ২০০ থেকে বাড়িয়ে ২২০ করা হয়েছে। সেন্ট জর্জ হাসপাতালে ৪০০ থেকে বেডের সংখ্যা বাড়িয়ে ৬৯০ করা হয়েছে। মুম্বইয়ের সরকারি হাসপাতালগুলিতে থাকা ২৫০ ভেন্টিলেটরই ভর্তি। তাই প্রশাসনের তরফে বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে আরও ২০০ ভেন্টিলেটরের ব্যবস্থা করতে।

আরও পড়ুন স্যুটকেসের উপর ঘুমিয়ে ছেলে, টেনে নিয়ে যাচ্ছে মা, ৮০০ কিলোমিটার হেঁটে বাড়ি ফিরছে পরিযায়ী শ্রমিকের দল

এখনও অবধি মহারাষ্ট্রের ৭০ শতাংশ আক্রান্ত শুধুমাত্র মুম্বই থেকেই হয়েছে। গোটা দেশের ২১ শতাংশ আক্রান্ত এই শহরেই। আশঙ্কা করা হচ্ছে মে মাসের শেষে শুধুমার মুম্বইয়ে আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ হাজার ছাড়িয়ে যাবে।

ইতিমধ্যেই কোভিড সংক্রমণে মহারাষ্ট্রে ৯২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। তার মধ্যে মুম্বইয়ে শুধুমাত্র ৫৫৬ জনের মৃত্যু হয়েছে যা রাজ্যের ৬০ শতাংশ।

You might also like