Latest News

ঝপঝপ করে কমছে সংক্রমণ, পজিটিভিটি আরও নেমেছে, সুস্থ হচ্ছেন বহু মানুষ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: চার লাখ থেকে এক ধাক্কায় আড়াই লাখে নেমে গেছে সংক্রমণ। সংক্রমণের হার তথা পজিটিভিটি রেটও ১৫ শতাংশ থেকে এক লাফে ১৩ শতাংশে নেমেছে। এর অর্থই হল, করোনা কমছে দেশে। কোভিড জয়ীদের সংখ্যা বাড়ছে। ভারতীয় বিজ্ঞানীরা আগেই বলেছিলেন, মানুষজন যদি ঠিকমতো কোভিড বিধি মানে তাহলে মার্চ থেকে এপ্রিলের মধ্যে সংক্রমণের হার তলানিতে এসে ঠেকবে। প্যানডেমিক পর্যায়ে থেকে এন্ডেমিকে পৌঁছে যাবে দেশ।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বুলেটিন বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়েছে ২ লাখ ৩৫ হাজার। দেশে কিছুদিন আগেই করোনা সংক্রমণের হার ছিল ২০.৭৫ শতাংশ, আজকের হিসেবে ১৩ শতাংশের কাছাকাছি। টানা পাঁচদিন তিন লাখের বেশি করোনা আক্রান্ত হচ্ছিল একদিনে, এখন সেখানে আড়াই লাখের কাছাকাছি নতুন সংক্রমণ ধরা পড়েছে। সুস্থতার হার ৯৩ শতাংশ।

করোনার ওমিক্রন প্রজাতির দাপাদাপি এখনও বন্ধ হয়নি। বরং ওমিক্রনের সেকেন্ড ভ্যারিয়ান্ট বিএ.২ সক্রিয় হয়েছে দেশের কয়েকটি রাজ্যে। এমনটাই খবর দিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। তাই কোভিডের বিধিনিষেধের রাশ এখনই আলগা করতে রাজি নয় কেন্দ্রীয় সরকার। বৃহস্পতিবার, কেন্দ্রের তরফে ঘোষণা করা হয়েছে, কোভিডের গাইডলাইন আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি অবধি বহাল থাকবে। রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে এই মর্মে নির্দেশিকা পাঠানো হয়েছে।

৫০ শতাংশ উপস্থিতি নিয়ে রেস্তোরাঁ, শপিং মল, সিনেমা হল খুলেছিল আগেই। সুইমিং পুল খোলারও অনুমতি দিয়েছে সরকার। বিমান যাত্রার ক্ষেত্রেও কিছু ছাড় দেওয়া হয়েছে। আন্তর্জাতিক বিমানযাত্রায় যদিও নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে। বর্তমানে শুধু ট্র্যাভেল বাবলের মাধ্যমে ও বন্দে ভারত মিশনের মাধ্যেমে আন্তর্জাতিক বিমান যাত্রা হচ্ছে।

কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা বাড়লেও ভাল খবর শুনিয়েছে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ (আইসিএমআর)। শীর্ষস্থানীয় এপিডেমোলজিস্ট ড. সমীরণ পাণ্ডা বলেছেন, ১ মার্চ থেকে করোনার দাপাদাপি কমবে। মানুষজন যদি কোভিড বিধি মেনে চলেন, মাস্ক আর সোশ্যাল ডিস্টেন্সিং মানেন, তাহলে মার্চ মাস থেকেই সংক্রমণের তেজ কমবে। ধীরে ধীরে এন্ডেমিক পর্যায়ে চলে যাবে দেশ।

পড়ুন দ্য ওয়ালের সাহিত্য পত্রিকাসুখপাঠ

You might also like