Latest News

নবান্নের নিরাপত্তা আরও আঁটোসাঁটো, ব্রিজের উপর বসল লোহার গেট

রফিকুল জামাদার

নবান্ন। রাজ্যের প্রধান সচিবালয়। খোদ মুখ্যমন্ত্রীর কার্যালয়ও রয়েছে সেখানে। সবসময়েই নবান্নের চারদিক ঘিরে রয়েছে নিরাপত্তার বজ্র আঁটুনি। সংলগ্ন এলাকায় জারি থাকে ১৪৪ ধারাও। কিন্তু হাওড়ার সেই নীল সাদা বিল্ডিংয়ের নিরাপত্তা বারবার প্রশ্নের মুখে পড়েছে সাম্প্রতিক অতীতে। রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনকারীরা অনেক সময়েই বিক্ষোভ দেখাতে দেখাতে পৌঁছে গিয়েছেন একেবারে নবান্নের দুয়ারে। এত বড় প্রশাসনিক কার্যালয়ের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এবার তাই নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে পুলিশ। নবান্ন থেকে কিছুটা দূরে বসানো হয়েছে লোহার নতুন গেট।

নবান্নের মূল ফটক থেকে প্রায় ৫০০ মিটার দূরে একটি লোহার গেট বসানো হয়েছে। সূত্রের খবর, নবান্নে হুটহাট করে কারও ঢুকে পড়া বা নবান্নের কাছে পৌঁছে যাওয়া আটকাতেই এই গেট বসেছে। দ্বিতীয় হুগলি সেতুর টোল ট্যাক্স পেরিয়ে যে ব্রিজ দিয়ে নবান্নের দিকে নামতে হয়, সেই ব্রিজের মাঝ বরাবর লাগানো হয়েছে এই লোহার গেট। কোনও আন্দোলনকারী বা বিক্ষোভ মিছিল নবান্নের দিকে এগিয়ে আসার খবর পাওয়া গেলেই তৎপর হবে পুলিশ। সঙ্গে সঙ্গে এই লোহার গেট বন্ধ করে দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেই শিক্ষক ঐক্যমঞ্চের একটি প্রতিনিধি দল বিক্ষোভ দেখাতে পৌঁছে গিয়েছিল একেবারে নবান্নের সভাঘরের সামনে। তা নিয়ে পুলিশের সঙ্গে কার্যত তুলকালাম হয়েছিল। দেখা গেছে, আন্দোলনকারীদের তুলে বের করে দিচ্ছেন পুলিশকর্মীরা। নবান্নের নিরাপত্তা নিয়ে তখনও কম প্রশ্ন ওঠেনি। কীভাবে বারবার পুলিশি ঘেরাটোপ পেরিয়ে নবান্নের সামনে চলে আসেন আন্দোলনকারীরা তা নিয়ে বেজায় ক্ষিপ্ত হয়েছিলেন শীর্ষ আধিকারিকরাও।

এরও কিছু আগে নবান্নের কাছে গিয়ে হাজির হয়েছিল বামফ্রন্টের একটি প্রতিনিধি দলও। তা নিয়েও শোরগোল হয়েছিল। একবার তো সুজন চক্রবর্তী, তন্ময় ভট্টাচার্যরা নবান্নর নিরাপত্তার ফাঁকফোকর গলে মূল ফটক পেরিয়ে  ঢুকে পড়েছিলেন।  সেখান থেকে তাঁদের গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। নবান্নের আশপাশে বিভিন্ন জায়গায় সিসি ক্যামেরা লাগানো রয়েছে। একাধিক এলাকায় পুলিশের টহলদারি চলে। তা সত্ত্বেও এই সমস্ত অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতেই নিরাপত্তায় আরও জোর দেওয়া হচ্ছে। ব্রিজে বসছে নতুন লোহার গেট।

শুধু তাই নয়, নবান্নে আন্দোলনকারীরা অনেকেই পৌঁছে যান গাড়ি নিয়ে। গাড়িতেই নবান্নের সামনে ঢুকে পড়েন তারা। অতীতে এমনটা একাধিকবার হয়েছে। তবে এই গেট বসানোয় তা বন্ধ হবে বলে মনে করছে প্রশাসন।

সূত্রের খবর, নবান্নে নিরাপত্তা বাড়াতে ভিআইপি গেটে লাগানো হয়েছে একটি অত্যাধুনিক সিস্টেম যার নাম ‘হাইড্রোলিক রাইসিং বোলার্ড’। লোকসভার গেটের সামনেও এই একই ব্যবস্থা রয়েছে।

কী সেটা? ভিআইপি গেট দিয়ে যখন কোনও গাড়ি ঢুকবে কেবল তখনই এই সিস্টেমের রাইসিং বোলার্ড নীচের দিকে নেমে যাবে, গাড়ি যাতায়াতের জায়গা করে দেওয়া হবে। তা না হলে বাকি সময় বোলার্ড দাঁড়িয়েই থাকবে। তখন কোনও গাড়ি সেখান দিয়ে প্রবেশ করতে পারবে না।

You might also like