Latest News

অরুণাচলের ১৫টি জায়গার নাম বদলে দিল চিন, আধিপত্য বিস্তারের মরিয়া চেষ্টা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: অরুণাচলে আধিপত্য বিস্তারের মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছে চিন। ১৫টি জায়গার নামই বদলে দিয়েছে বেজিং। চিনা ভাষায় খোদাই করা নামের বোর্ড আটকে দেওয়া হয়েছে জায়গায় জায়গায়া। পার্বত্য এলাকা থেকে নদী, বসতি অঞ্চল, সবই নিজেদের বলে দাবি করছে চিন।

বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচি জানাচ্ছেন, অরুণাচলে চিনের আধিপত্য ভাবিয়ে তুলছে নয়াদিল্লিকে। চিনের মন্ত্রিসভা বেশ কয়েকটি জায়গার নাম সরকারি ভাবে স্বীকৃত হিসেবে ধরার জন্য নতুন নির্দেশিকা জারি করেছে৷ চিনের সরকারি সংবাদমাধ্যম গ্লোবাল টাইমস -এ প্রকাশিত খবর অনুযায়ী , ‘দক্ষিণ তিব্বতের ’ (অরুণাচল প্রদেশকে এই নামেই উল্লেখ করে চিন ) যে জায়গাগুলির নাম বদল করা হয়েছে তার মধ্যে দুটি পর্বত, নদী ও বসতি এলাকা রয়েছে। চিনা , তিব্বতি এবং রোমান অক্ষরে ওই নামগুলি কী ভাবে লেখা হবে , তাও নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছে৷

অরুণাচলের নাম ঘোষণাকে চিনের পাল্টা চাপ সৃষ্টির চেষ্টা হিসেবেই দেখছে কূটনৈতিক মহল৷ যদিও বেজিং সরাসরি সে কথা স্বীকার করছে না৷  চিনের বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র লু কাং দাবি করেছেন , চিনের মন্ত্রিসভা যে নতুন নিয়মাবলি তৈরি করেছে , তার সঙ্গে সঙ্গতি রেখেই ১৫টি জায়গার নাম নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছে৷ কাজেই বিষয়টি আইনসঙ্গত৷ ওই নামগুলি নতুন করে চাপিয়ে দেওয়াও নয়৷ প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে মুখে মুখে ওই নাম প্রচলিত ছিল৷ এ বার সেগুলোকেই সরকারি ভাবে স্বীকৃত দেওয়া হল মাত্র৷

অরুণাচল সীমান্তে গ্রামও তৈরি করছে চিন। সীমান্ত বরাবর চার জায়গায় সামরিক পরিকাঠামো তৈরি করতে দেখা গিয়েছে চিনের বাহিনীকে। ভারতের নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকা থেকে ২০ কিলোমিটারের মধ্যে আসাফিলা, টুটিং অ্যাক্সিস, চ্যাং জ়ি ও ফিসটেল-২ সেক্টরে সেনা মোতায়েন করতে দেখা গেছে চিনকে। ভারতের সেনা সূত্র জানাচ্ছে, এই চারটি স্পটের মধ্যে আসাফিলা এবং ফিসটেল-২ সেক্টরে চিনে বাহিনীর তৎপরতা বেশি। এই দুটি স্পট ভারতের সীমান্তের খুবই কাছে। অনুমান করা হচ্ছে এই দুই এলাকায় সেনার সংখ্যা বাড়ানোর পাশাপাশি রাইফেল ডিভিশনও মোতায়েন করছে পিপলস লিবারেশন আর্মি।

পূর্ব লাদাখে ভারতের শক্তির সঙ্গে এঁটে উঠতে না পেরে অরুণাচলে নতুন করে সামরিক বিন্যাস করে ভারতের বাহিনীকে চ্যালেঞ্জ ছোড়ারই চেষ্টা করছে চিন, প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞদের মত এমনটাই। পূর্ব লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার মতোই অরুণাচলের সীমান্ত নিয়েই দুই দেশের বাহিনীর বিবাদ অনেক পুরনো। সেই ১৯৬২ সালে ইন্দো-চিন যুদ্ধ বাধে এই অরুণাচলকে কেন্দ্র করেই। চিন একে দক্ষিণ তিব্বতের অংশ বলেই মনে করে। পূর্ব লাদাখের মতো অরুণাচলেও আধিপত্য বিস্তার করতে মরিয়া তারা।

You might also like