Latest News

নির্ভয়া কাণ্ড: বিনয়ের আর্জি খারিজ হতেই রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা অক্ষয়ের

১ ফেব্রুয়ারি তিহাড় জেলে ফাঁসি হওয়ার কথা ছিল নির্ভয়া গণধর্ষণ কাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত পবন কুমার গুপ্ত, অক্ষয় ঠাকুর, মুকেশ সিং এবং বিনয় শর্মার। কিন্তু ফাঁসির দিন ঘোষণার পর থেকেই শুরু হয়েছে টালবাহানা।

দ্য ওয়াল ব্যুরো: শনিবার সকালেই নির্ভয়া কাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত বিনয় শর্মার প্রাণভিক্ষার আর্জি খারিজ করেছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। বিনয়ের আর্জি খারিজ হতে না হতেই রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আর্জি জানিয়েছে নির্ভয়া গণধর্ষণে দোষী সাব্যস্ত অক্ষয় ঠাকুর।

১ ফেব্রুয়ারি তিহাড় জেলে ফাঁসি হওয়ার কথা ছিল নির্ভয়া গণধর্ষণ কাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত পবন কুমার গুপ্ত, অক্ষয় ঠাকুর, মুকেশ সিং এবং বিনয় শর্মার। কিন্তু ফাঁসির দিন ঘোষণার পর থেকেই শুরু হয়েছে টালবাহানা। একের পর এক পিটিশন দাখিল করেছে দোষীরা। কখনও তাদের দাবি ঘটনার সময় তারা নাবালক ছিল, কখনও বা কিউরিটিভ পিটিশন, কখনও রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আর্জি আবার কখনও বা রাষ্ট্রপতির খারিজ করা আর্জিকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে গিয়েছে দোষীরা।

বারবার সাজার দিন পিছিয়ে যাওয়ায় ক্ষুব্ধ আমজনতা। ভেঙে পড়েছেন নির্ভয়ার মা আশাদেবীও। কবে ফাঁসি হবে জানেন না কেউই। বিনয় শর্মার প্রাণভিক্ষার আর্জি খারিজ হওয়ায় অনেকেই ভেবেছিলেন হয়তো ফেব্রুয়ারির ১৫ তারিখ ফাঁসি হবে চার দোষীর। কারণ প্রাণভিক্ষার আর্জি খারিজ হলে মৃত্যুদণ্ডের সাজা কার্যকর হওয়ার মধ্যে ১৪ দিন সময় পাওয়া যায়। তবে ফের রাষ্ট্রপতির কাছে অক্ষয় ঠাকুরের প্রাণভিক্ষার আর্জি জমা পড়ায় ধন্দে সকলেই। এখনও পর্যন্ত একমাত্র দোষী মুকেশ সিংয়েরই সবরকম আপিল করা হয়ে গিয়েছে এবং সেসব রাষ্ট্রপতি এবং সুপ্রিম কোর্টের দরবারে খারিজও হয়ে গিয়েছে। তবে মৃত্যুদণ্ড পাঠানোর জন্য বাকি তিন দোষীর সবরকম আর্জি জানানোর রাস্তা এখনও বন্ধ হয়নি।

ফাঁসির দিন ঘোষণার পর থেকেই মৃত্যুদণ্ডের সাজা পিছিয়ে দেওয়ার আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছে এই চার দোষী।

You might also like