Latest News

শেষ হতে চলেছে এক বছরের কৃষক আন্দোলন, সরকার দাবি মানার পরেই চূড়ান্ত ঘোষণা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দীর্ঘ এক বছরের আন্দোলনের অবসান ঘটতে চলেছে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনার পর দেশের রাজধানীর সীমান্ত থেকে আন্দোলন সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কৃষকরা। আগামী শনিবার ১১ ডিসেম্বর দিল্লি বর্ডার থেকে ফিরে যাবেন কৃষকরা।

কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে একাধিক বিষয় নিয়ে আলোচনা চলছিল আন্দোলনকারীদের। সেই আলোচনায় কৃষকদের দাবি মেনে নেওয়ার পরেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানা যায়। আগেই বিতর্কিত তিনটি কৃষি আইন প্রত্যাহারের কথা জানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু তারপরেও কিছু দাবি দাওয়া নিয়ে আন্দোলন চলছিল। সেই আন্দোলনেরই অবসান ঘটতে চলেছে।

প্রসঙ্গত, এক বছর আগে কেন্দ্র সরকারের আনা কৃষি আইন নিয়ে তোলপাড় শুরু হয় দেশজুড়ে। অবিলম্বে সেই আইন প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়। এই দাবি সামনে রেখেই দেশের বিভিন্ন প্রান্তে আন্দোলন শুরু হয়। সেই আন্দোলনের মধ্যেই মৃত্যু হয় বেশ কৃষকের। এমনকি কৃষকদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মামলাও দায়ের করা হয়।

তবে আলোচনার পর আন্দোলনে মৃত কৃষকদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়া সহ সমস্ত মামলা প্রত্যাহারের কথা জানায় কেন্দ্রীয় সরকার। কেন্দ্রীয় সরকারের এহেন ‘নমনীয়তা’র সামনে আন্দোলন প্রত্যাহার করার কথা জানায় সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা।

এই সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার ছাতার তলাতেই দীর্ঘ এক বছর আন্দোলন চালাচ্ছিলেন দেশের কৃষকরা। গতকাল এই সংগঠনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, সরকারের তরফে তাদের দাবি মেনে নেওয়ার প্রস্তাবের সংশোধিত চূড়ান্ত অনুলিপি পাওয়ার পরেই এই আন্দোলন বৃহস্পতিবার তুলে নেওয়া হবে।

কৃষকদের কী কী দাবি ছিল-

  • সমস্ত রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে বা কেন্দ্রীয় সরকারী সংস্থাগুলির অধীনে এই প্রতিবাদের সময় নথিভুক্ত সমস্ত আন্দোলন-সম্পর্কিত মামলা প্রত্যাহার করতে হবে
  • আন্দোলন চলাকালীন মারা যাওয়া আন্দোলনকারী কৃষকদের সমস্ত পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে
  • সংসদে উত্থাপন করার আগে সরকারকে বিদ্যুৎ সংশোধনী বিলটি এসকেএম বা অন্যান্য কৃষক ইউনিয়নের সাথে আলোচনা করতে হবে
  • কৃষিজাত দ্রব্য বিক্রির ক্ষেত্রে ন্যূনতম মূল্য (এমএসপি) নিয়ে আলোচনার জন্য একটি কমিটি গঠন করতে হবে। পাশাপাশি, এমএসপি যেমন চলছে তেমনই চলবে দেশজুড়ে।

You might also like