Latest News

বাম শূন্য নয়, কলকাতায় বাতি জ্বালিয়ে রাখলেন দুই মহিলা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: লোকসভায় শূন্য হয়েছিল বামেরা। তারপর বিধানসভাতেও তাই। সংযুক্ত মোর্চার ঢাক পিটিয়েও কিস্যু করা যায়নি। অবশেষে শূন্য আতঙ্ক কাটল বামেদের। এসএন ব্যানার্জি রোডের লাল বাড়িতে যাচ্ছেন দুই লাল ঝান্ডার প্রতিনিধি। ৯২ নম্বরে জিতেছেন মধুছন্দা দেব এবং ১০৩ নম্বরে জিতেছেন নন্দিতা রায়। দু’জনেই বামফ্রন্ট মনোনীত সিপিএম ও সিপিআই প্রার্থী হিসেবে লড়াই করেছিলেন এই দু’জন।

১৯৪৬ সালে বাংলার বিধানসভায় দু’জন কমিউনিস্ট পার্টির প্রতিনিধি ছিলেন। রতনলাল ব্রাহ্মণ এবং জ্যোতি বসু। তারপর থেকে বামহীন বিধানসভা কখনও হয়নি। যা হয়েছে একুশে। তারপর থেকে ক্রমশ শূন্য আতঙ্ক গ্রাস করেছিল। কিন্তু সেই আতঙ্ক যেন কিছুটা কাটল।

ভোট শতাংশেও বামেরা সামগ্রিক ভাবে আগের থেকে ভাল জায়গায় পৌঁছেছে। দুপুর পর্যন্ত যা চিত্র তাতে সমগ্র কলকাতায় বামেদের সামগ্রিক ভোট ১৩ শতাংশের আশপাশে। গণনা শেষ হলে তা আরও স্পষ্ট হবে। গত বিধানসভায় কংগ্রেসও শূন্য পেয়েছিল। কিন্তু কলকাতা কর্পোরেশন নির্বাচনে তারাও দুটি আসন জিতেছে। ৪৫ নম্বরে জিতেছেন সন্তোষ পাঠক। ১৩৭ নম্বর ওয়ার্ডও কংগ্রেসের দখলে গিয়েছে।

তবে ৯৮, ১১১, ১২৭, ১২৮ নম্বরের মতো গত বারের জেতা ওয়ার্ডগুলি নিয়ে এবারেও বামেরা জয়ের আশা করেছিল, তার কোনওটাই হয়নি। বাম নেতৃত্বের বক্তব্য, সুষ্ঠু ভাবে ভোট হলে আরও ফলাফল ভাল হতো। সিপিএমের এক রাজ্য সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্যের কথায়, ভোট শতাংশে তৃতীয় থেকে দ্বিতীয় স্থানে যাওয়াটা রাজনৈতিক চ্যালেঞ্জ ছিল। সেটা কতটা করা গেল, কোন কোন বরো এলাকায় তা সম্ভব হল বা হল না তা আরও কিছুটা পর পরিষ্কার হবে।

You might also like