Latest News

তেলঙ্গানা উপনির্বাচন: টাকা দাও, ভোট নাও! বিক্ষোভ গ্রামবাসীদের, কমিশনে কংগ্রেস

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভোট এলে জনতার দুয়ারে ভোটভিক্ষেয় বেরিয়ে প্রার্থীরা নানা প্রতিশ্রুতি দিয়ে থাকেন। ভোটে জিতে সরকার গড়লে এটা দেব, সেটা দেব, এমন প্রতিশ্রুতি থাকে নির্বাচনী ইস্তাহারেও। ভোট কিনতে গোপনে টাকা ছড়ানোর অভিযোগও ওঠে।  তেলঙ্গানার (telangana) করিমনগরে ভোটপ্রচারে টাকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি পালন না  করার অভিযোগে ক্ষমতাসীন তেলঙ্গনা রাষ্ট্রীয় সমিতির (টিআরএস) বিরুদ্ধে তুমুল বিক্ষোভ দেখালেন স্থানীয় বাসিন্দারা। সেখানে হুজুরাবাদ বিধানসভা কেন্দ্রে শনিবার উপনির্বাচন।  বীনাবাঙ্কা গঙ্গারাম গ্রামের লোকজনের দাবি, তাঁদের মূল্যবান ভোটটি পেতে হলে টাকা দিতে হবে (cash) (vote)। কেননা শাসক টিআরএস (trs) প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, টাকা দেবে, কিন্তু দেয়নি। এলাকার বিজেপি কর্মীরা তক্কে তক্কে থাকায় টাকা বিলি বন্ধ হয় বলে জানিয়েছেন তাঁরা। স্থানীয় লোকজনের বক্তব্য, কেন  টাকা পাব না? কেসিআর সাহেব আমাদের জন্য টাকা পাঠাননি! আপনাদের ভোট দেব কি দেব না? অধিকাংশ বিক্ষোভকারীই মহিলা (women)। এও বলেন, টিআরএস কেন  টাকা দেবে না! আমাদের বাড়ি নেই, খাবার নেই।

কংগ্রেসের অভিযোগ, ভোটারদের প্রভাবিত করতে বিজেপি, টিআরএস-উভয় দলই টাকা, নানা উপঢৌকন বিলিয়ে মডেল নির্বাচনী আচরণবিধি (model code of conduct) ভাঙছে।

 

তারা ট্যুইট করেছে, হুজুরাবাদে  গণতন্ত্র কীভাবে বিক্রি হচ্ছে, দেখুন। জেপি নড্ডা কোটি কোটি টাকা  পাঠাচ্ছেন, যা দুর্নীতিগ্রস্ত সঙ্ঘি সরকার  দিয়েছে। নির্বাচন কমিশন নীরব দর্শক। তারা নির্বাচন বাতিল করে একটু অন্ততঃ সাহস দেখাক। টিআরএস ৬ থেকে ৮ হাজার টাকা, বিজেপি ১৫০০  থেকে শুরু করে টাকা বিলোচ্ছে।

 

গ্রামবাসীদের ক্ষোভের কারণ, তাদেরই কেউ কেউ মুখ বন্ধ করা খাম পেয়েছেন, সবাই পাননি।

সরপঞ্চের বাড়ির বাইরে বিক্ষোভ  দেখান মহিলারা। দাবি, দিলে সবাইকে দিতে হবে।

কংগ্রেস প্রতিনিধিদল উপনির্বাচন বাতিলের দাবি করে বলেছে, কেন্দ্রে, রাজ্যে ক্ষমতায় আছে যথাক্রমে বিজেপি, টিআরএস। দুদলই ক্ষমতার চরম অপব্যবহার করে অবাধ, মুক্ত নির্বাচনের পথে বাধা দিচ্ছে।

You might also like