Latest News

‘দুঃখজনক’, কেরলে বকরি ইদে কোভিড ১৯ বিধিনিষিধ শিথিলে ক্ষুব্ধ সুপ্রিম কোর্ট, কাঁওয়ার যাত্রা মামলার রায় মানার নির্দেশ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কেরল সরকারের বকরী ইদে কোভিড ১৯ সংক্রান্ত বিধিনিষেধ শিথিল করার সিদ্ধান্তে ক্ষোভ সুপ্রিম কোর্টের। পিনারাই বিজয়ন সরকারকে তিরস্কার করে বিচারপতি আর এফ নরিম্যান ও বিচারপতি বি আর গাভাইকে নিয়ে গঠিত শীর্ষ আদালতের বেঞ্চ বলেছে, পজিটিভিটি হার ১৫ শতাংশ ছাড়িয়ে যাওয়া  এলাকাগুলিতে রাজ্য সরকারের ১৯ জুলাই পুরো দিনটা দোকানপাট খোলা রাখার অনুমতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত ‘দুঃখজনক পরিস্থিতির ছবি’ তুলে ধরছে। ধর্মীয় বা অন্য যে ধরনেরই হোক, কোনও প্রেসার গ্রুপ কোনওভাবেই ভারতবর্ষের নাগরিকদের স্বাস্থ্য ও জীবনের মূল্যবান অধিকারে হস্তক্ষেপ করতে পারে না।  আমরা কেরল সরকারকে ভারতের সংবিধানের ২১ ও ১৪৪ অনুচ্ছেদ মেনে কাঁওয়ার যাত্রা মামলায় ঘোষিত আমাদের রায় পালন করতে বলছি। উত্তরপ্রদেশ সরকারকে আদালত কাঁওয়ার যাত্রায় অনুমতির সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করতে বলেছিল।

কোভিড ১৯ লকডাউন সংক্রান্ত বিধিনিষেধ শিথিল করার রাজ্য সরকারের সিদ্ধান্ত বাতিল করেনি সুপ্রিম কোর্ট, কিন্তু সিদ্ধান্তের জেরে কোভিড ১৯ সংক্রমণ বৃদ্ধির মতো অবাঞ্ছিত কিছু ঘটলে সাধারণ  মানুষকে আদালতের দ্বারস্থ হওয়ার অনুমতি দিয়েছে।

১৭ জুলাই মুখ্যমন্ত্রী বিজয়ন সাংবাদিক বৈঠকে জানান, ২১ জুলাই  বকরী ইদ উপলক্ষ্যে  টেক্সটাইল, জুতো, জুয়েলারি, ফ্যান্সি সামগ্রী, ইলেকট্রনিক্স  সামগ্রী, হোম অ্যাপ্লায়েন্স, সব ধরনের রিপেয়ারিং সামগ্রী, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দোকানপাট ১৮ থেকে ২০ জুলাই সকাল সাতটা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এ, বি, সি ক্যাটাগরিভুক্ত এলাকায় খোলা থাকবে।  বিজয়নের এহেন ছাড় ঘোষণার বিরোধিতা করে শীর্ষ আদালতে তার ওপর স্থগিতাদেশ চেয়ে আবেদন করেন দিল্লির পি কে ডি নাম্বিয়ার। কেরল যে রাজ্যগুলিতে পজিটিভিটি রেট বেশি, তাদের অন্যতম বলে সওয়াল করেন তিনি।

এদিকে সোমবার কেরলে ৯৯৩১টি  নতুন কোভিড ১৯ সংক্রমণের কেস  নথিভুক্ত হয়েছে। রাজ্যে মোট সংক্রমণের কেস বেড়ে হল ৩১ লাখ ৭০ হাজার ৮৬৮।   আরও ৫৮ জনের মৃত্যু যোগ করে রাজ্যে করোনা সংক্রমণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৫৪০৮ হয়েছে বলে  রাজ্য সরকারের বিজ্ঞপ্তিতে  জানানো হয়েছে। সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের খবর এসেছে মালাপ্পুরম থেকে। ১৬১৫। সবচেয়ে কম কোল্লামে। ৮০২।

 

 

You might also like