Latest News

জম্মুর রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের মায়ানমারে ফেরত পাঠানো বন্ধের আর্জি, ২৫ শে শুনানি সুপ্রিম কোর্টে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ফরেনার্স অ্যাক্টে জম্মু ও কাশ্মীরে দেড়শোর বেশি রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুকে বন্দি শিবিরে পাঠানো হয়েছে দিনকয়েক আগে। কেন্দ্রশাসিত জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসন ৬ মার্চ নথিপত্রহীন অভিবাসনকারীদের চিহ্নিত করার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। তারই অঙ্গ হিসাবে ধরপাকড় রোহিঙ্গাদের। এবার তাদের মায়ানমারের ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া চলবে বলে জানিয়েছে প্রশাসন। তবে ওদের মুক্তি ও সুরক্ষার নির্দেশ চেয়ে আর্জি পেশ হয়েছে সুপ্রিম কোর্টে। ২৫ মার্চ তার শুনানি করতে আজ রাজি হয়েছে প্রধান বিচারপতি এস এ বোবদের নেতৃত্বাধীন শীর্ষ আদালতের বেঞ্চ। তারা ওই আর্জির ব্যাপারে আগামী সপ্তাহে কেন্দ্রের বক্তব্য জানাতে বলেছে সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতাকে।
কেন্দ্রের প্রশাসনিক কর্তাব্যক্তিদের দাবি, ওদের ক্ষেত্রে বৈধ আইনি প্রক্রিয়া মানা হয়েছে, ওদের কাছে বৈধ ভ্রমণ সংক্রান্ত নথি, কাগজপত্র ছিল না।
২০১৭ থেকেই হাজারে হাজারে রোহিঙ্গা অত্যাচার এড়াতে মায়ানমার থেকে পালিয়ে এদেশে ঢুকেছে, তাদের অনেকেই কেন্দ্রশাসিত জম্মু ও কাশ্মীরে বসবাস করছে। রোহিঙ্গা দমনে মায়ানমার সেনার অভিযানকে ‘একটি জাতিকে পুরোপুরি নির্মূল করে দেওয়ার টেক্সবুক উদাহরণ’ বলে অভিহিত করেছে রাষ্ট্রপুঞ্জ।
মহম্মদ সালিমুল্লাহ নামে এক রোহিঙ্গার তরফে আর্জি পেশ করে দ্রুত শুনানির আবেদন করেছেন আইনজীবী প্রশান্ত ভূষণ। বলেছেন, যে মায়ানমার থেকে খতম হওয়ার ভয়ে পালিয়ে এসেছেন, সেখানেই জম্মুতে আটক রোহিঙ্গাদের যে কোনও সময়ে পাঠানো হতে পারে। সেজন্যই আর্জির দ্রুত শুনানি হওয়া প্রয়োজন। ফেব্রুয়ারিতে মায়ানমারে হওয়া সেনা অভ্যুত্থানের উল্লেখ করে ভূষণ বলেন, মায়ানমারে এখন সামরিক সরকার ক্ষমতায়। ওদের জীবন তাই বিপন্ন। মেহতা অবশ্য ভূষণের বক্তব্য তথ্যগত ভাবে ভুল বলে দাবি করে সরকার ২৪ মার্চ তার প্রতিক্রিয়া দেবে বলে জানান। সলিমুল্লাহ তাঁর পিটিশনে প্রায় ১৫০ উদ্বাস্তুকে বাইরে বের করে দেওয়ার জন্য অস্থায়ী জেলে আটকে রাখার সংবাদপত্রে প্রকাশিত খবরেরও উল্লেখ করেছেন। জানিয়েছেন, এর আগে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জিতেন্দ্র সিং জানিয়েছিলেন, রোহিঙ্গারা নাগরিকত্ব অর্জন করতে পারবে না। এই উদ্বাস্তুদের বেআইনি ভাবে আটক করে জম্মুর সাব জেলে রাখা হয়েছে। সাব জেলকে আটক রাখার কেন্দ্র বানানো হয়েছে। জম্মুর আইজিপি মুকেশ সিং জানিয়ে দিয়েছেন, ওদের দূতাবাসের ভেরিফিকেশনের পর মায়ানমারে ফেরত পাঠানো হবে।
তাঁর পিটিশনে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের এখনই ছেড়ে দিয়ে সরকার উদ্বাস্তু পরিচয়পত্র দিক। আরও আবেদন করা হয়েছে, উদ্বাস্তুদের দেশ থেকে বের করে দেওয়ার কোনও আদেশ প্রয়োগ করা থেকে সরকারকে বিরত থাকতে বলুক আদালত।

You might also like