Latest News

একাধিক লক্ষ্যবস্তুকে ধ্বংস করতে পারে, ২ হাজার কিমি পাল্লার অগ্নি-প্রাইমের উৎক্ষেপণ সফল

দ্য ওয়াল ব্যুরো: একের পর এক ক্ষেপণাস্ত্রে শান দিচ্ছে ভারত। শনিবার বেলা ১১টা নাগাদ ওড়িশার বালাসোরের এপিজে আবদুল কালাম দ্বীপ থেকে অগ্নি-প্রাইম মিসাইলের সফল উৎক্ষেপণ হল।

‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ প্রকল্পে একের পর ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষায় সাফল্য পাচ্ছে ভারতের প্রতিরক্ষা গবেষণা সংস্থা ডিআরডিও। সমুদ্র সুরক্ষায় তৈরি নতুন ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণেও অবিশ্বাস্য সাফল্য এসেছে। ভূমি থেকে তীর বেগে ছুটে গিয়ে আকাশে নিশানা লাগিয়েছে ভার্টিকল লঞ্চ কম পাল্লার সারফেস-টু-এয়ার মিসাইল। আর অগ্নি ক্লাস ক্ষেপণাস্ত্রের সবচেয়এ আধুনিক ও উন্নত প্রযুক্তির মিসাইল হল অগ্নি-প্রাইম।

অগ্নি প্রাইম ক্ষেপণাস্ত্র পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম। তার পাল্লা ১ হাজার থেকে ২ হাজার কিলোমিটার পর্যন্ত হতে পারে। এই ক্ষেপণাস্ত্রের বিশেষত্ব হল, এক সঙ্গে একাধিক লক্ষ্যবস্তুকে নিখুঁত ভাবে ধ্বংস করতে সক্ষম। এর আগে ওড়িশার চাঁদিপুর থেকে আর একটি ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করেছে ভারত। তার নাম ‘পিনাক’। একটি মাল্টি ব্যারেল রকেট লঞ্চার থেকে বিভিন্ন পাল্লার ২৫ টি পিনাক ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়েছিল।

অগ্নি-প্রাইম অ্যান্টি ব্যালিস্টিক মিসাইল সিস্টেমকেও ধোকা দিতে সক্ষম। এ ছাড়া ১৫ হাজার কেজি পরমাণু অস্ত্র বহনেও সক্ষম। এর গতি শব্দের চেয়ে ২৪ গুণ বেশি।

গত মার্চ মাসে আকাশ এন জি নামে আর একধরণের ক্ষেপণাস্ত্রের সফল উৎক্ষেপণ করে ভারত। ওই ক্ষেপণাস্ত্রগুলিও ভূমি থেকে আকাশে ছোড়া যায়। ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ প্রকল্পে দেশীয় সংস্থার কাছেই এমন মিসাইল তৈরির বরাত দিয়েছিল কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা গবেষণা সংস্থা তথা ডিআরডিও। ভারত ডায়ানামিক্স ও ডিআরডিও-র তৈরি আকাশ মিসাইলের পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণে বড় সাফল্য এসেছে। জয়সলমীর জেলার পোখরানের ফিল্ড ফায়ারিং রেঞ্জ থেকে তির বেগে ছুটে গিয়ে লক্ষ্যে আঘাত করেছে এই ক্ষেপণাস্ত্র। ডিআরডিও জানাচ্ছে, ৪০ কিলোমিটার পাল্লায় নিক্ষেপ করা হয়েছে এই এয়ার মিসাইলটিকে। প্রয়োজনে নতুন প্রজন্মের আকাশ ক্ষেপণাস্ত্রের পাল্লা বাড়ানোও সম্ভব।

পড়ুন দ্য ওয়ালের সাহিত্য পত্রিকাসুখপাঠ

You might also like