Latest News

Gyanvapi: জ্ঞানবাপী মসজিদে শিবলিঙ্গ আছে বলে পোস্ট করেছিলেন, দিল্লিতে গ্রেফতার সেই অধ্যাপক

দ্য ওয়াল ব্যুরো: জ্ঞানবাপী (Gyanvapi) মন্দিরের ওজুখানার জলাধারের নীচে প্রাচীন শিবলিঙ্গ আছে বলে প্রথম ফেসবুক পোস্ট করেছিলেন। ওই মসজিদের পশ্চিম দেওয়ালে হিন্দু মন্দিরের নানা চিহ্নি আছে বলেও দাবি করেছিলেন অধ্যাপক। এই বিষয়টি নিয়ে বিতর্কের জল এখন বহুদূর গড়িয়েছে। মামলা চলছে সুপ্রিম কোর্টে। বিতর্কিত সেই ফেসবুক পোস্টের জন্য দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক রতন লালকে গ্রেফতার করেছে দিল্লি পুলিশ।

ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৫৩এ ও ২৯৫এ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। শুক্রবার রাতেই গ্রেফতার হন অধ্যাপক। জানা গেছে, দিল্লির (উত্তর) সাইবার সেলে অধ্যাপকের বিরুদ্ধে এফআইআর করা হয়েছে।

জ্ঞানবাপী মসজিদের (Gyanvapi) ওজুখানায় শিবলিঙ্গের ছবি দেখিয়ে একটি বিতর্কিত পোস্ট করেন অধ্যাপক। তিনি বলেছিলেন, আদালতের নির্দেশে ১৯৯৬ সালের জুলাই মাসে মসজিদ চত্বরে সমীক্ষার কাজ চালানো হয়েছিল। সেই সমীক্ষার রিপোর্টও জমা পড়েছিল আদালতে। কিন্তু সেই রিপোর্ট প্রকাশ্যে আনা হয়নি। তাতে মন্দিরের উপস্থিতির উল্লেখ ছিল। ২০২১ সালের অগস্টে পাঁচ হিন্দু মহিলা জ্ঞানবাপীর ‘মা শৃঙ্গার গৌরী’ (ওজুখানা ও তহখানা নামে পরিচিত) এবং মসজিদের পশ্চিমের দেওয়ালে দেবদেবীর মূর্তির অস্তিত্বের দাবি করে তা পূজার্চনার অনুমতি চেয়েছিলেন বারাণসী আদালতে। কিন্তু আইন অনুযায়ী বর্তমানে দেশে যে সমস্ত ধর্মীয় কাঠামো আছে তাদের চরিত্র বদল করা যাবে না বলেই রায় দিয়েছিল আদালত।

অধ্যাপকের পোস্টের পরেই বিতর্কের জল বহুদূর গড়ায়। হিন্দুদের ভাবাবেগে আঘাত করা হয়েছে দাবি করে অধ্যাপক রতন লালের বিরুদ্ধে সাইবার সেলে এফআইআর করেন এক আইনজীবী। এর প্রেক্ষিতেই অধ্যাপককে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এদিকে জ্ঞানবাপী মসজিদে (Gyanvapi) পাওয়া শিবলিঙ্গের মতো কাঠামোকে অনেক মুসলিম সংগঠন ফোয়ারা বলে বর্ণনা করেছে। লখনৌয়ের মাউন্ড ওয়ালী মসজিদের মাওলানা ফজলে মান্নান বলেছেন যে মসজিদগুলিতে হাউজ নির্মাণের মূল কারণ ছিল ওজু করা। একই সাথে তাদের সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য বসানো হয়েছে ফোয়ারা।

You might also like