Latest News

পরকীয়া? নিষ্কলঙ্ক প্রমাণে ফুটন্ত তেলে হাত পোড়াতে হল মহিলাকে! গুজরাতের ঘটনা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ফুটন্ত তেলে হাত পুড়িয়ে সতীত্বের প্রমাণ দিতে হল গুজরাতের সুরেন্দ্রনগর জেলার ধারানগাধরা তালুকের নিমকনগর গ্রামের এক মহিলাকে। পুলিশ জানিয়েছে, গীতা বিঞ্চিয়া নামে ৩৯ বছরের মহিলার বিরুদ্ধে প্রতিবেশী ৬০ বছরের ধীরু ভিমানি বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের অভিযোগ তোলেন। নিমকনগর থানার এএসআই এম ডি সোলাঙ্কি বলেন, ভিমানির দাবি, খুব সকাল সকাল স্বামী কাজে বেরিয়ে গেলেই নিয়মিত বিঞ্চিয়ার কাছে একটি লোক আসে। যদিও মহিলা এই দাবি খারিজ করেছেন। কে সত্যি বলছে, প্রমাণ করতে ভিমানি প্রস্তাব দেন, তাঁরা দুজনেই গরম তেলে হাত পোড়াবেন।  কচ্ছের লিটল রান সীমান্তের কাছে নিমকনগর গ্রাম সহ সৌরাষ্ট্রের কিছু এলাকায় গরম তেলে হাত ডুবিয়ে নিরপরাধ প্রমাণের রীতি বহু কাল ধরে চালু ছিল, বিশেষতঃ সেইসব  সম্প্রদায়ের মধ্যে যাদের স্বাক্ষরতার হার কম।

বিঞ্চিয়া, ভিমানি-দুজনকেই সিআরপিসি-র ১০৭ ধারায় আটক করে পুলিশ। স্থানীয় থানার ইনস্পেক্টর এএইচ গোরি বলেন, ওঁরা নিজেরাই ফুটন্ত তেলে হাত ডুবিয়েছেন। ওঁদের হেফাজতে নিই আমরা। দুজনকেই ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে পেশ করা হলে জামিনদার পেশ করার শর্তে ছেড়ে দেওয়া  হয়।

নিমকনগর গ্রামের সরপঞ্চ সাজন কুদেচার স্বামী চান্দু কুদেচা বলেন, পুলিশকে অনুরোধ করা হয় ভিমানির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে কেননা এমন আচরণ মেনে নেওয়া যায় না। কিন্তু পুলিশ বলেছে, মহিলাই অভিযোগ দায়ের করতে চাননি।

সোলাঙ্কি জানান, মহিলার আঘাত বেশি গুরুতর। আমরা তাঁকে অভিযোগ দায়ের করতে বলি, কিন্তু তিনি নারাজ। বলেন, তাঁরা উভয়েই প্রতিবেশী, তাই আপসে ব্যাপারটা মিটিয়ে নিয়েছেন।

বিঞ্চিয়াও নিরক্ষর। তিনি  বলেছেন, গত দুমাস ধরে ভিমানি রটিয়ে বেড়াচ্ছিল, আমার সঙ্গে একটি লোকের বিবাহবহির্ভূত সম্পর্ক আছে। সে নাকি দেখেছে, স্বামী ভোর চারটেয় বেরিয়ে গেলে লোকটি আমার ঘরে ঢোকে। দাবি প্রমাণে সে আগুনে হাত পুড়িয়ে পরীক্ষা দিতে রাজি বলে জানায়। আমাকে ফুটন্ত তেলে হাত ডুবিয়ে রাখতে হয় যাতে স্বামীর আড়ালে লোকে আমাকে নিয়ে কুকথা না বলে। বিঞ্চিয়া জানান, ভিমানি শুধু আঙুলের মাথাটা গরম তেলে ছোঁয়ায়। বিঞ্চিয়ার ১৩ বছর বয়সে বিয়ে হয়। বলেন, ২৭ বছর বিয়ে হয়েছে আমাদের। কিন্তু সন্তান ধারণ করতে পারিনি। তাই লোকে নানা কথা রটায়।

ঘরের পাঁচটা মহিষ সামলান, মাঠেও কাজ করেন বিঞ্চিয়া। বলেন, ভিমানিরা আমাদের প্রতিবেশী, সংখ্যায়ও বেশি। স্বামীর নিরাপত্তা নিয়েও চিন্তা হয়, তাই ওদের নামে থানায় অভিযোগ জানাতে বাধা দিই।

বিঞ্চিয়ার স্বামীও নিরক্ষর। তাঁর বক্তব্য, চাইনি, স্ত্রীকে গরম তেলে হাত চোবাতে হোক। কিন্তু সংখ্যাগরিষ্ঠদের ভয়ে চুপ করে থাকতে হয়েছে।

 

You might also like