Latest News

মদ সিন্ডিকেট! ‘তৃণমূল ঘনিষ্ঠ’ মুর্শিদকে গ্রেফতার করল বিহার পুলিশ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বিহারে ক্ষমতায় এসেই মদ নিষিদ্ধ করেছিল নীতীশ কুমার সরকার। এখনও সেটাই বহাল রয়েছে পড়শি রাজ্যে। কিন্তু মাঝেই মাঝেই বিহার পুলিশকে এখান সেখান থেকে খবর পেতে হতো, চোরাই মদ ঢুকছে রাজ্যে। তা চুপিচুপি ছড়িয়ে পড়ছে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায়। তক্কে তক্কে ছিল আবগারি দফতর এবং পুলিশ। শেষ পর্যন্ত গত শুক্রবার পুর্নিয়া পুলিশ গ্রেফতার করেছে মুর্শিদা আলমকে।

কে এই মুর্শিদ আলম?

তিনি উত্তর দিনাজপুরের ডালখোলার বাসিন্দা। দাপটও ব্যাপক। একটা সময় তিনি ডালখোলা টাউন যুব তৃণমূলের সভাপতি ছিলেন। বিরোধীদের বক্তব্য, ইটাহারের বর্তমান বিধায়ক গৌতম পাল থেকে শুরু করে জেলা পুলিশের শীর্ষ আধিকারিকদের সঙ্গে মুর্শিদের গলায় গলায় সম্পর্ক। এই ‘মদ মাফিয়া’র ফেসবুক প্রোফাইল ঘাঁটলেও দিব্যি সেই ছবি দেখা যাচ্ছে।এ ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানার জন্য ইসলামপুর জেলা পুলিশের সুপার শচীন মাক্কারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু তাঁর ফোন বেজে গিয়েছে। ইটাহারের তৃণমূল বিধায়ক গৌতম পাল জানিয়েছেন, “মুর্শিদ আলম আগে তৃণমূলের নেতৃত্বে ছিলেন। এখন তিনি কোনও পদাধিকারী নন। আর এখন তো বাংলার সবাই বলছে ‘আমি তৃণমূল।’ এখন কে কী করছে সব কি দেখা সম্ভব?” তাঁর মুর্শিদের সঙ্গে ছবি প্রসঙ্গে গৌতম বলেন, “কত লোকই তো ছবি তোলে। সব কি দেখা সম্ভব!” তবে বিহার পুলিশ যে ডালখোলার মুর্শিদকে গ্রেফতার করেছেন তা জানেন বিধায়ক গৌতম। এবং তাঁর দাবি, মুর্শিদ যে এই ধরনের চোরাই মদ সিন্ডিকেটের সঙ্গে যুক্ত তা তাঁর জানাই ছিল না।

বিহার পুলিশের বক্তব্য, শুধু সেই রাজ্যের ১৫টি জেলা নয়। ঝাড়খণ্ড ও উত্তর-পূর্বের একাধিক রাজ্যেও চোরাই মদ, জাল বিলিতি মদ সাপ্লাই চেনের কিংপিন এই মুর্শিদ। পুর্নিয়া পুলিশের এক আধিকারিকের কথায়, মুর্শিদকে যত জেরা করা হচ্ছে তত এই চক্রের গভীরতা বোঝা যাচ্ছে। নিবিড় নেটওয়ার্কের মাধ্যমে এই মদ সিন্ডিকেট চালাচ্ছিল গত কয়েক বছর ধরে। শুধু তাই নয়। মুর্শিদের সঙ্গে হরিয়ানার এক মাফিয়ারও যোগসূত্র তারা পেয়েছে বলে দাবি করেছে পুর্নিয়া পুলিশ।

You might also like