Latest News

প্রতিরক্ষায় ভারতের পাশে ইজরায়েল, যৌথ উদ্যোগে যুদ্ধাস্ত্র বানানোর চুক্তি দুই দেশের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বালাকোটের এয়ার স্ট্রাইক থেকে পূর্ব লাদাখে চিনের বাহিনীর উপর নজরদারি, শত্রুপক্ষকে ধরাশায়ী করার যুদ্ধান্ত্র তৈরির প্রযুক্তিতে বরাবরই ইজরায়েলি নির্ভরতা নজরে এসেছে। হেরন টিপি ড্রোন, ফ্যালকন, শুত্রুসেনার ওপর আক্রমণ শানানোর মতো সমরাস্ত্র ইজরায়েলের থেকেই কিনেছে ভারত। প্রতিরক্ষার (Defence) কৌশল হোক বা যুদ্ধান্ত্র তৈরির প্রযুক্তির আদানপ্রদান, ইজরায়েলকে সবসময়েই পাশে পেয়েছে ভারত। এবার সামরিক ক্ষেত্রে এই পারস্পরিক সহযোগিতাকেই অন্য মাত্রা দিতে চলেছে দুই দেশ।

যুদ্ধাস্ত্র তৈরির প্রযুক্তির আদানপ্রদান করবে দুই দেশই। মঙ্গলবার ভারতের প্রতিরক্ষা গবেষণা সংস্থা ডিফেন্স রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (ডিআরডিও) ও ইজরায়েলের প্রতিরক্ষা সংস্থা ডিরেক্টরেট অব ডিফেন্স রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (ডিডিআরঅ্যান্ডডি)-এর মধ্যে প্রতিরক্ষা চুক্তি সাক্ষরিত হয়েছে। এই চুক্তি অনুযায়ী দুই দেশই প্রতিরক্ষার ক্ষেত্রে তাদের আধুনিক প্রযুক্তির আদানপ্রদান করবে।

ডিআরডিও চেয়ারম্যান সতীশ রেড্ডি জানিয়েছেন, সমরাস্ত্র তৈরির অত্যাধুনিক প্রযুক্তি দুই দেশই নিজেদের মধ্যে আদানপ্রদান করবে। ড্রোন, রোবোটিক্স, বায়োসেন্সিং, ব্রেন-মেশিন ইন্টারফেস, এনার্জি স্টোরেজ ইত্যাদি গবেষণার ক্ষেত্রে প্রযুক্তিগত তথ্যের আদানপ্রদান হলে আরও বেশি আধুনিক ও উন্নতমানের সমরাস্ত্র তৈরি করা সম্ভব হবে।

প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে ভারত ও ইজরায়েলের পারস্পরিক সহযোগিতা প্রথম নয়। যৌথ উদ্যোগে অত্যাধুনিক অস্ত্র এবং সামরিক সরঞ্জাম তৈরির জন্য সাব-ওয়ার্কিং গ্রুপও তৈরি করেছে ভারত-ইজরায়েল। দুই দেশের প্রতিরক্ষা সচিব ও সমরাস্ত্র নির্মাতা সংস্থাগুলির প্রতিনিধিরা ওই গ্রুপে রয়েছেন। প্রতিরক্ষা মন্ত্রক সূত্রের খবর, দ্বিপাক্ষিক চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি উৎপাদিত অস্ত্র এবং সামরিক সরঞ্জাম অন্য দেশে বিক্রিও ওই গ্রুপের অন্যতম লক্ষ্য।

ইজরায়েল থেকে হেরন ড্রোন আমদানি করার জন্য চুক্তি হয়েছে সম্প্রতি। ডিআরডিও এবং ইজরায়েলি অ্যারোস্পেস ইন্ডাস্ট্রিজের যৌথ উদ্যোগে ‘বারাক’ ক্ষেপণাস্ত্রের তিনটি সংস্করণ তৈরির কাজ চলছে। ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপ করা যায় এই অস্ত্র। ইজরায়েল থেকে এয়ার ডিফেন্স অ্যান্ড ফায়ার কন্ট্রোল রাডারও কিনবে ভারত। কয়েক বছর আগে প্রায় ৮,১০৭ কোটি টাকা দিয়ে ইজরায়েল থেকে তিনটি ফ্যালকন কিনেছিল ভারত। রাশিয়ার তৈরি সামরিক পরিবহণ বিমানে আইএল-৭৬-এ বসানো এই ইজরায়েলি নজরদারি ব্যবস্থার কাজ হল, ভারতীয় বায়ুসেনার ফাইটার জেটগুলিকে নিখুঁত ভাবে লক্ষ্য চিনতে সাহায্য করা। বালাকোট জঙ্গি শিবিরে হামলার সময় ভারতের মিরাজ-২০০০ ফাইটার জেট থেকে ইজরায়েলি স্পাইস বোমাই নিক্ষেপ করেছিল ভারত।

পড়ুন দ্য ওয়ালের সাহিত্য পত্রিকা সুখপাঠ

You might also like