Latest News

মোদী দুর্বল প্রধানমন্ত্রী, পারিবারিক পরিচয় বেচে সহানুভূতি চান, আক্রমণ খাড়্গের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে (Narendra Modi) দুর্বল প্রধানমন্ত্রী বলে তীব্র আক্রমণ শানালেন কংগ্রেস সভাপতি মল্লিকার্জুন খাড়্গে (Mallikarjun Kharge)। তাঁর বক্তব্য, প্রধানমন্ত্রী সুযোগ পেলেই ভোটারদের সহানুভূতি আদায় করতে চান নিজের পারিবারিক পরিচয় তুলে ধরে।

তাৎপর্যপূর্ণ হল, খাড়্গের এই আক্রমণ যেন সাড়ে আট বছর আগে মোদীর এক মন্তব্যের বদলা। ২০১৪-র লোকসভা ভোটের প্রচারে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহ’কে দুর্বল প্রধানমন্ত্রী আখ্যা দিয়েছিলেন আজকের প্রধানমন্ত্রী মোদী। মনমোহনের যাবতীয় পদক্ষেপ আসলে সনিয়া, রাহুলদের সিদ্ধান্ত, প্রচার করত বিজেপি। মোদী ছিলেন সেই প্রচারের প্রথম সারিতে। মনমোহন রিমোট চালিত প্রধানমন্ত্রী, বলতেন মোদী।

কিন্তু মোদীর সাড়ে আট বছরের প্রধানমন্ত্রিত্বে তাঁকে কেউ দুর্বল প্রধানমন্ত্রী বলে আক্রমণ করেনি। সম্পূর্ণ ভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে খাড়্গে গুজরাতের প্রচারে ব্যক্তি নরেন্দ্র মোদী সম্পর্কে ‘দুর্বল’ শব্দটি ব্যবহার করেছেন।

প্রচারে খাড়্গে প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছেন, আর কতদিন আপনি পারিবারিক পরিচয় বলে বেড়াবেন। আমি গরিব পরিবার থেকে এসেছি। আমাকে গালি দিচ্ছে, আমার পারিবারিক পরিচয় নিয়ে প্রশ্ন তুলছে, জাতীয় কথা আর কতদিন শোনাবেন। খাড়্গে বলেন, মানুষ এত বোকা নয়। তারা বোঝে আপনার কৌশল।

প্রসঙ্গত, গুজরাত বিধানসভার প্রচারে কংগ্রেস এবার মোদীকে সরাসরি নিশানা করার রাস্তা এড়িয়ে চলছিল। তাদের বক্তব্য ছিল, মোদীকে আক্রমণ করা মানে তাঁর সুবিধা করে দেওয়া। ভোট হচ্ছে বিধানসভার। তাই রাজ্য বিজেপি এবং রাজ্য সরকারকে মূল নিশানা করা হবে।

কিন্তু গোল বাঁধে প্রবীণ কংগ্রেস নেতা মধুসূদন মিস্ত্রির বক্তব্য ঘিরে। তিনি দিন কয়েক আগে বলে বসেন, নরেন্দ্র মোদী নিজেকে সর্দার বল্লভভাই প্যাটেল ভাবতে শুরু করেছেন। এবারের ভোটে ওঁকে বুঝিয়ে দেব, উনি আদতে কী। ওঁর পরিচয় ওঁকে স্মরণ করিয়ে দেওয়া হবে।’

মিস্ত্রির ওই কথার প্রসঙ্গ ধরে সভার পর সভায় প্রধানমন্ত্রী বলে বেড়াচ্ছেন কংগ্রেস তাঁকে অপমান করছে। তিনি যেহেতু সাধারণ পরিবার থেকে এসেছেন, তাই তাঁর পরিচয় নিয়ে প্রশ্ন তোলা হচ্ছে। অতীতেও কংগ্রেস নেতারা তাঁর সম্পর্কে কে কী বলেছেন, তাও তুলে ধরছেন মোদী।

পাল্টা প্রচারে খাড়্গে বলেছেন, এসবই প্রধানমন্ত্রীর দুর্বলতার লক্ষণ। তাঁর আসলে কাজ নিয়ে কিছু বলার নেই। কাজের কথা এলেই তিনি বলে থাকেন, ৭০ বছরে কংগ্রেস কিছু করেনি। খাড়্গের বক্তব্য, কংগ্রেস কিছুই না করে থাকলে আপনি প্রধানমন্ত্রী হতে পারতেন না।

প্রধানমন্ত্রীকে নিশানা করে কংগ্রেস সভাপতি আরও বলেন, ‘আপনি প্রায়ই বলে থাকেন, আমি গরিব পরিবার থেকে এসেছি। আর আমি এমন সমাজের মানুষ যাদের অন্যরা অচ্ছুৎ মনে করত। মানুষ আপনার হাতে চা খেয়েছে। আমাদের হাতে কেউ চা পান করত না।’

খাড়্গে বলতে চেয়েছেন, পারিবারিক পরিচয় তুলে ধরে রাজনীতি করা মোটেই ভাল দৃষ্টান্ত নয়। তিনি নিজে জনজাতি গোষ্ঠীর মানুষ। কিন্তু রাজনৈতিক মঞ্চ থেকে কখনও সে কথা বলেননি। কংগ্রেস সভাপতি পদে প্রার্থী হওয়ার পর খাড়্গের এই পরিচয় আলোচনায় আনেন রাজনৈতিক বিশ্লেষক এবং কংগ্রেস নেতারা। দলিত পরিবারের সদস্য খাড়্গে জীবনে জাতিগত সংঘাতেরও শিকার হয়েছেন।

মোদীকে নিশানা করতে গিয়ে কংগ্রেস সভাপতি প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহের প্রসঙ্গ উত্থাপন করেন ভাষণে। তিনি বলেন, উনি একজন অর্থনীতিবিদ হিসাবে পরিচিত এবং তাঁর পাণ্ডিত্য বিশ্বজুড়ে সমাদৃত। তিনিও দারিদ্রের সঙ্গে লড়াই করে উঠে এসেছিলেন। কিন্তু কংগ্রেস বা মনমোহন সিংহ, কেউই এই ব্যক্তিগত তথ্যকে রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেনি।

আত্মহত্যা করতে পারে আফতাব! তিহারের ৪ নম্বর সেলে কড়া নজরদারি, আজ ফের পলিগ্রাফ পরীক্ষা

You might also like