Latest News

Nadia: নদিয়া সীমান্তে ত্রাস ‘অপু’! পাচার চক্রের মূল হোতাকে হন্যে হয়ে খুঁজছে বিএসএফ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: অপু, নদিয়ার (Nadia) সীমান্তে এক পরিচিত নাম। কোনও জনহিত কাজের জন্য নয়, সীমান্তে পাচার চক্রের মূল হোতা। অপুর ভাল নাম সাগর বিশ্বাস। বিএসএফ (BSF) তাকে ধরার জন্য তৎপর হয়ে উঠেছে। কিন্তু কিছুতেই তার নাগাল পাচ্ছে না।

সূত্রের খবর, অপুর পাচার চক্রের সঙ্গে যুক্ত অন্যান্য অভিযুক্তদের ধরা গেলেও তার হদিশ মেলেনি। কয়েকদিন আগেই এই পাচার চক্রের সঙ্গে যুক্ত এক মহিলাকে গ্রেফতার করে বিএসএফ। জানা গেছে, সেই মহিলার সঙ্গে অপুর সরাসরি যোগাযোগ রয়েছে বলে গোয়েন্দাদের অনুমান।

ধৃতের নাম সুমিতা রায়। এই মহিলাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে অপুর নাগাল পাওয়া চেষ্টা করছেন গোয়েন্দারা। তাঁদের কথায়, অপুকে ধরা গেলেই সীমান্তে পাচার চক্র অনেকটাই বন্ধ করা যাবে।

সীমান্ত দিয়ে পাচার নতুন ঘটনা নয়। সোনার বিস্কুট থেকে শুরু করে ফেন্সিডিল, গাঁজা সহ নানা মাদক দ্রব্য পাচার হয় ভারত বাংলাদেশ সীমান্ত দিয়ে। গোয়েন্দাদের অনুমান, এই সব পাচারের অধিকাংশের সঙ্গেই সাগরের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে যোগ আছে। আড়াল থেকেই পাচার চক্র পরিচালনা করে সাগর। তার নামে থানায় জমা হয়েছে একাধিক এফআইআর।

জানা গিয়েছে, দিন কয়েক আগেই একই পরিবারের চারজন সদস্য ভারতে প্রবেশ করতে গেলে বিএসএফ আটক করে। তাদের বাড়ি বাংলাদেশের বাগেরহাট জেলার সুরাটপুর গ্রামে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা শুরু হয়। সেই সময় তাদের ফোনে একটি নম্বর থেকে বারবার ফোন আসতে থাকে। সেই সূত্র ধরেই বিএসএফ অপুর সন্ধানে গেলেও শেষ পর্যন্ত জাল কেটে পালিয়ে যায় সে। সেখান থেকেই সুমিতাকে গ্রেফতার করা হয়। এখন বিএসএফের প্রধান মাথা ব্যাথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে অপু। কবে তাকে গ্রেফতার করা সম্ভব হবে? সেই প্রশ্নই ঘুরপাক খাচ্ছে নদিয়া সীমান্ত এলাকায়।

‘হাঁসখালির মেয়েটি কি রেপ হয়েছে, না প্রেগন্যান্ট ছিল, লাভ অ্যাফেয়ার্স তো ছিলই’: মুখ্যমন্ত্রী

You might also like