Latest News

পায়ে বেড়ি নিয়ে ২০ বছর পার! মুর্শিদাবাদের সামিউলকে নিয়ে ধুঁকছে পরিবার

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সংসারে অভাব প্রকট। তার উপর ছোট্ট ছেলের নামে রোজ আসত ভুরি ভুরি নালিশ। কখনও এর বাড়ি গিয়ে তছনছ করেছে তো কখনও বিরক্ত করেছে রাস্তার পথচলতি মানুষকে (Mursidabad)। ছেলেকে সামলাতে না পেরে বাধ্য হয়েই তাই শিকল দিয়ে তাকে বেঁধে রাখার সিদ্ধান্ত নেন বাবা-মা। সেই থেকে পায়ে শিকল বাঁধা অবস্থায় দিন কাটে সামিউলের।

মমতাকে নিশানা করে ফের অমিতকে চিঠি ধনকড়ের, উস্কে দিলেন বিজিবিএস নিয়ে সংঘাত

মুর্শিদাবাদের রানীনগরের পূর্বপাড়া এলাকার বাসিন্দা সামিউলের বয়স এখন ২৩। সে যখন বছর তিনেকের ছিল, তখন থেকেই তার পায়ে বেড়ি দিয়ে দেন বাবা-মা। ছেলে জন্ম থেকেই মানসিক ভারসাম্যহীন। তাই পাড়া-পড়শির অভি্যোগের হাত থেকে বাঁচতে এমনভাবেই ছেলেকে তাঁরা বেঁধে রাখেন। ২০ বছর ধরে এভাবেই বন্দি জীবন কাটাচ্ছে সামিউল।


ছেলের চিকিৎসা করানোর সামর্থ্য নেই সামিউলের বাবা-মার। তাই কোনও উন্নতিও নেই তাঁদের। তাঁরা জানিয়েছেন বছর ১৫ আগে একবার স্থানীয় বিডিও এসে কিছু টাকা দিয়ে সাহায্য করে গিয়েছিলেন এই গরিব পরিবারকে। কিন্তু তাতে কিছুই হয়নি। ছেলের চিকিৎসা করানো যায়নি একেবারেই। তারপর থেকে আর কোনও সাহায্যও পাননি তাঁরা।

এই পরিস্থিতিতে সরকারি সাহায্যের আর্তি জানিয়েছে সামিউলের পরিবার। ছেলের চিকিৎসার ব্যবস্থা যদি কেউ করে দেয়, আবেদন রেখেছেন তাঁরা। পাড়া-প্রতিবেশীরাও জানিয়েছেন, সামিউলের এই অবস্থা দেখে সকলের খারাপ লাগে। শিকল-মুক্তির দাবি রেখেছেন তাঁরাও।


পড়ুন দ্য ওয়ালের সাহিত্য পত্রিকা ‘সুখপাঠ’

You might also like