Latest News

করোনা কালেই ‘আচ্ছে দিন’, ধাপে ধাপে বিশ্বের চার নম্বর ধনী মুকেশ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: করোনা আবহে সম্পদ বাড়িয়েই চলেছেন রিলায়েন্স কর্তা মুকেশ আম্বানি। বিশ্বজুড়ে যখন করোনা সংকট চলছে তখনই একের পর এক শিখর স্পর্শ করে চলেছেন তিনি। নয় থেকে ধাপে ধাপে পৌঁছে গেলেন চার নম্বরে। এবার পিছনে ফেললেন ইউরোপের ধনীতম ব্যক্তিকে।

ব্লুমবার্গ বিলিয়নিয়ার ইনডেক্স-এর সর্বশেষ তথ্য বলছে, রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের চেয়ারম্যান মুকেশ আম্বানির বর্তমান সম্পদের পরিমাণ ৮০.৬ বিলিয়ন। ভারতীয় মূদ্রার হিসেবে ৬ লক্ষ ৪ হাজার কোটি টাকার‌ উপরে। চলতি বছরেই তাঁর সম্পদ বৃদ্ধি ২২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এর আগে বিশ্বের ধনীতম ব্যক্তিদের যে তালিকা প্রকাশ করে ব্লুমবার্গ তাতে চার নম্বরে ছিলেন ফরাসি শিল্পপতি বার্নার্ড আরনল্ট। কিন্তু তাঁর সংস্থা এলভিএমএইচ-এর আয় কমে যাওয়ায় সম্পদের নিরিখে ইউরোপের ধনীতম ব্যক্তিকে পিছনে ফেলে দিলেন ভারত তথা এশিয়ার ধনীতম মুকেশ আম্বানি।

আরও পড়ুন

‘জয় শ্রীরাম’ না বলায় সপাটে চড়, প্রৌঢ় অটো চালককে বেধড়ক মার রাজস্থানে

গত এক মাসে যে হারে আম্বানির সম্পত্তি বেড়েছে তা এককথায় অবিশ্বাস্য। গত এপ্রিল থেকে রিলায়েন্স জিও-তে একের পর এক বিদেশি বিনিয়োগ আসছে। যার মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য হল ফেসবুক। ফেসবুকের সঙ্গে রিলায়েন্স জিও’র রেকর্ড অর্থের চুক্তির পরেই এশিয়ার ধনীতম ব্যক্তির তকমা পান মুকেশ আম্বানি। ৪৩,৫৭৪ কোটি টাকার বিনিময়ে ফেসবুক রিলায়েন্স জিও’র ৯.৯ শতাংশ শেয়ার কিনে নেয়। জিও প্ল্যাটফর্মে সম্প্রতি ৭৩০ কোটি টাকা বিনিয়োগের কথা ঘোষণা করেছে মার্কিন তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা কোয়ালকম ভেঞ্চার্স। একের পর এক বিদেশি বিনিয়োগের ফলে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ এখন সম্পূর্ণ ঋণমুক্ত একটি সংস্থা। মুকেশ আম্বানির টার্গেট ছিল ২০২১ সালের মার্চের মধ্যে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ ঋণমুক্ত হয়ে যাবে। তার অনেক আগেই সংস্থার সব ঋণ শেষ। তার জেরে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ-এর উপরে শেয়ার লগ্নিকারীদের আস্থাও বেড়ে গিয়েছে। ফলে দিন দিন বাড়ছে মোট সম্পত্তির পরিমাণ।

লকডাউন পর্বে রিলায়েন্সের সম্পত্তি বাড়তে থাকলেও গত জুন মাসেই মুকেশ ছিলেন বিশ্বের ধনীতম ব্যক্তির তালিকায় ন’নম্বরে। জুলাইতে এক লাফে পৌঁছে যান ছ’নম্বরে। এর পরে এক সপ্তাহ যেতে না যেতেই গত ২২ জুলাই পাঁচ নম্বের। জুলাই মাসের মাঝামাঝি সময়ে বার্কশায়ার হ্যাথাওয়ের সিইও ওয়ারেন বাফেটের সম্পদের থেকেও মুকেশের সম্পদের পরিমাণ ছাপিয়ে যায়। আর অগস্টের প্রথম দিকেই চার নম্বরে।

এখন ভারতে ই-কমার্স ব্যবসায় নেমেছে রিলায়েন্স। পাশাপাশি টেলিকম ব্যবসায় নিজেদের অবস্থা আরও পোক্ত করতে‌ আগামী বছরই জিও-র ফাইভ-জি পরিষেবা আ‌নার ঘোষণা করা হয়েছে। সম্প্রতি জিও প্ল্যাটফর্মের ৭.৭ শতাংশ শেয়ার সুন্দর পিচাইয়ের সংস্থা গুগল কিনতে চলেছে। জানা গিয়েছে, মোট ৩৩ হাজার ৭৩৭ কোটি টাকার বিনিময়ে এই অংশদারীত্ব নেবে গুগল।

এর আগে গুগল-এর কর্ণধার সের্গেই ব্রিন ও ল্যারি পেজকেও ছাড়িয়ে যান রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ-এর চেয়ারম্যান। এর পরে টপকান বার্থসায়ার হাথওয়ের সিইও ওয়ারেন বাফেটকে। এখন সম্পদের বিচারে মুকেশের আগে আছেন তিনজন। শীর্ষে রয়েছেন অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোস। এর পরেই দু’নম্বরে রয়েছেন মাইক্রোসফ্টের বিল গেটস। তিনে ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুকারবার্গ। এর পরের নামটাই মুকেশ আম্বানি।

You might also like