Latest News

মহম্মদ জুবেইরের আরও চার দিনের পুলিশ হেফাজত, নির্দেশ আদালতের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: অল্ট নিউজের সাংবাদিক মহম্মদ জুবেইরকে চার দিনের পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দিল দিল্লির পাতিয়ালা হাউস কোর্ট।

২০১৮ সালের একটি টুইটের প্রেক্ষিতেই তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। যা নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন। কেন পুরনো টুইট টেনে এখন গ্রেফতার করা হল? কণ্ঠরোধ করতেই কি নতুন করে এই গ্রেফতারি?

মঙ্গলবার দিল্লির পাতিয়ালা হাউস কোর্টে (Delhi Patiala House Court) সেইসব প্রশ্নেরই উত্তর দেয় দিল্লি পুলিশ। তারা জানিয়েছে, ২০১৮ সালের টুইটের ভিত্তিতে গ্রেফতার করা হয়নি। সম্প্রতি জুবেইর ওই পুরনো টুইট, রি-টুইট করেন। তাই তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

জুবেইর জেলে, নোবেল শান্তি পুরস্কারের সংক্ষিপ্ত তালিকায় নাম রয়েছে তাঁর

মঙ্গলবার সাংবাদিক মহম্মদ জুবেইরকে দিল্লির পাতিয়ালা হাউস কোর্টে তোলা হয়। সেখানেই পাঁচদিনের পুলিশ হেফাজতের দাবি জানিয়েছিল দিল্লি পুলিশ। সেই দাবির পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশের যুক্তি, ২০১৮ সালের ওই টুইটের কারণে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়নি। সম্প্রতি ওই টুইট রি টুইট করা হয়েছে। এবং কয়েক জনকে ট্যাগ করা। তদন্তের জন্য তাঁর কাছে মোবাইল চাওয়া হয়। কিন্তু তা দিতে অস্বীকার করাতেই গ্রেফতার করা হয়েছে। গতকাল এক দিনের পুলিশ হেফাজত দিয়েছিল কোর্ট। এদিন আরও চার দিনের হাফজতের নির্দেশ দিল আদালত।

পুলিশ কর্তা পিএফ মালহোত্রা জানান, ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করেছে এই টুইট (Tweet)।

অনেকে আরও প্রশ্ন তুলছে এই টুইটে তো কোন অশান্তি হয়নি, তাহলে কেন গ্রেফতারি? পুলিশের ব্যাখ্যা, শুধুমাত্র অশান্তি ছড়িয়েছে এমন বার্তার ক্ষেত্রেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে তা নয়, ২০০৬ সালের তথ্য প্রযুক্তি আইন অনুসারে, যদি এমন কিছু পোষ্ট করা হয় যা থেকে অশান্তি সৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে সেই ক্ষেত্রেও ব্যবস্থা নেওয়া যায়। সেই ভিত্তিতেই গ্রেফতার করা হয় জুবেইরকে।

উল্লেখ্য, সোমবার দিল্লি পুলিশের বিশেষ শাখা জুবেইরকে গ্রেফতার করে। অল্ট নিউজ মূলত খবরের ভিতরকার খবরকে তুলে ধরে। একটা খবর নিয়ে যখন হইচই হয় তখন তারা সত্যান্বেষীর ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়। তুলে ধরে, আসলে কী ঘটেছে (ফ্যাক্ট চেকিং)।

You might also like